আশায় ছিলেন মেয়ের, পেলেন জোড়ালাগা জমজ

10

স্টাফ রিপোর্টার: আঠারো ও পনেরো বছর বয়সি দুই ছেলের জনক-জননী আঙ্গুরি বেগম (৩৫) ও রুবেল হোসেন (৪২) দম্পতি। মেয়ের আশায় তৃতীয় সন্তান নেন তারা। তাদের সেই আশ পুরণ হয়েছে।

সোমবার (১১ জানুয়ারি) রাজশাহী ভোরে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে জমজ ছেলের সাথে জোড়ালাগা কন্যা সন্তান জন্ম দিয়েছেন আঙ্গুরি বেগম।  
 

কোলজুড়ে জমজ সন্তান আসলেও খুশি হতে পারেননি এই দম্পতি। কারণ-এই জমজ জন্ম নিয়েছে অভিন্ন পেট নিয়ে। নেই তাদের পায়ুপথও। 
 

আঙ্গুরি – রুবেল দম্পতি চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার বিদিরপুর গ্রামের। এলাকায় ফেরি করে খুচরা পণ্য বিক্রি করেন রুবেল। অভাবের সংসারে দুই ছেলের পড়ালেখার খরচ যোগাতে পারেননি তিনি। টুকটাক কাজ করে ছেলেরাও সংসারে হাত লাগিয়েছে।

এই দুই নবজাতকের উন্নত চিকিৎসায় ঢাকায় নেয়ার পরামর্শ দিয়েছেন রামেক হাসপাতালের চিকিৎসক। এই খবরে আকাশ ভেঙে পড়েছে দরিদ্র রুবেলের মাথায়। অর্থের অভাবে ঢাকায় না নিয়ে নবজাতক নিয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন তিনি। প্রসূতি রয়ে গেছেন হাসপাতালেই।
 

রামেক হাসপাতাল সূত্র জানিয়েছে, প্রসব বেদনা নিয়ে রোববার দিবাগত রাত ২টার দিকে রামেক হাসপাতালে আসেন আঙ্গুরি বেগম। তাকে হাসপাতালের গাইনি ইউনিট-২ এর ২৩ নম্বর ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়। 

সোমবার ভোর ৫টার দিকে সিজারিয়ান অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে জোড়ালাগা শিশুদুটির জন্ম নেয়। উন্নত চিকিৎসার পরামর্শ দিয়ে দুপুর ২টার দিকে নবজাতককে ছাড়পত্র দেয়া হয়েছে।

কিন্তু ঢাকায় না নিয়ে স্বজনরা নবজাতক নিয়ে গ্রামের বাড়ি ফিরে গেছেন। যাবার আগে হাসপাতালে আঙ্গুরি বেগমের মা আনোয়ারা বেগম জানিয়েছেন, অভাবের সংসার।

শিশু দুটির চিকিৎসা কীভাবে হবে তা নিয়ে তারা এখন দুশ্চিন্তায়। হাসপাতাল থেকে বাড়ি গিয়ে কিছু টাকা জোগাড় করে  তারা ঢাকায় যাবেন।

 আনোয়ারা বেগম আরো জানান,  প্রসবের বেদনা উঠলে রোববার সন্ধ্যায় আঙ্গুরি বেগমকে চাঁপাইনবাবগঞ্জের একটি ক্লিনিকে নেয়া হয়।  আল্ট্রাসনোগ্রাম করে চিকিৎসক জানান, এখানে তাদের সিজারিয়ন সম্ভব না। রাতেই তারা রামেক হাসপাতালে পাঠিয়ে দেন। এরপর সোমবার ভোরে এ দুই শিশুর জন্ম হয়।

 শিশু দুটির দুটি করে হাত ও পা আছে। মাথা-মুখমণ্ডলও আলাদা, কিন্তু পেট একটাই। পায়ুপথ বোঝা যাচ্ছে না। বাচ্চা দুটির লিঙ্গও স্পষ্টভাবে বোঝা যাচ্ছে না। তবে চিকিৎসক তাদের জানিয়েছেন, বাচ্চা দুটির একটি ছেলে এবং অন্যটি মেয়ে। 

 নবজাতকের অবস্থা জানতে চাইলে রামেক হাসপাতালের উপপরিচালক ডা. সাইফুল ফেরদৌস জানিয়েছেন, একই পেট নিয়ে নাবজাতক দুটির জন্ম হয়েছে। তাদের কোন পায়ুপথ নেই। পায়ুপথের জন্য সার্জারির প্রয়োজন। উন্নত চিকিৎসার জন্য নবজাতকদের দ্রুত ঢাকায় নেয়ার পরামর্শ নেয়া হয়েছে।

আপনার মন্তব্য