কোন কাজে নারীর খরচ হয় কত ক্যালরি?

14
কোন কাজে নারীর খরচ হয় কত ক্যালরি?

নারী ডেস্ক: শরীরের প্রতি যত্ন নেয়া হচ্ছে না, ব্যায়াম করারও সময় পাচ্ছেন না? তারা জেনে রাখুন ঘরেরই কোন কাজে কত ক্যালরি খরচ হয়।

বাথরুম পরিষ্কার

বাথরুম আমরা সবাই রোজ ব্যবহার করি, তাই পরিষ্কার রাখাটা খুব জরুরি। বাথরুমের দেয়াল, মেঝে, বেসিন, কমোড ঘষে ঘষে তকতকে করে ফেলুন ব্রাশ দিয়ে।

উবু হয়ে বসে যখন মেঝে ঘষতে গেলে খেয়াল করবেন যেন হাঁটুতে চোট না লাগে বা সাবানে পা পিছলে না যায়।

আপনার হাত, পেট, কোমর সুঠাম ও সুডৌল থাকবে এর ফলে। যদি এ সময় পেটটা ভেতর দিকে টেনে ধরে রাখতে পারেন, তা হলে খুব ভালো হয়। বাথরুমে ঘণ্টাখানেক কাজ করার পর আপনার অন্তত ২৫৬ ক্যালরি খরচ হওয়ার কথা।

গাড়ি ধোয়া

গাড়ি বা স্কুটি ধোয়ার কাজ যারা নিজে হাতে করেন এবং করতে ভালোবাসেন, তারা জানেন যে রীতিমতো ঘাম ঝরানো পরিশ্রম হয় এর ফলে।

প্রথমে পানি দিয়ে ধাওয়া, তারপর সাবান ঘষে ঘষে ময়লা তোলা, কাচ পরিষ্কার, গাড়ির ভেতরের ধুলা মোছার কাজে হাত, পা, পেট এবং পেশির ওপর চাপ পড়ে।

কাজ করার সময় পেটের পেশি একটু টেনে ধরে রাখুন।

এক ঘণ্টায় অন্তত ৩০০ ক্যালরি খরচ হয় এতে। ৪৫ মিনিট সাঁতার কাটলে ৩০০ ক্যালরি পোড়ে।

ঘর মোছা

ঘর মোছার আগে যদি ঘর ঝাঁট দেওয়াও যোগ করে নেন, তা হলে ক্যালরি পোড়ার হার বাড়বে। ঘর, বিছানার আশপাশ, আলমারির পেছন সব ঝাঁট দিলে আধা ঘণ্টায় ১৫০ ক্যালরি পোড়ার কথা।

ঘর মোছার সময় প্রায় গাড়ি ধোয়ার মতোই পরিশ্রম হয়। এতে আধা ঘণ্টায় ১৫০ ও এক ঘণ্টায় প্রায় ৩০০ ক্যালরি খরচ হবে।

ধুলো ঝাড়া

তুলনামূলকভাবে কম ক্যালরি পোড়ে, এক ঘণ্টায়, যা ১৭০-এর কাছাকাছি।

জানলা পরিষ্কার

জানলা পরিষ্কার করাটাও বেশ সময়সাপেক্ষ ব্যাপার। প্রথমে শুকনো কাপড়ে ধুলো, ঝুল মোছা দরকার। তার পর সাবান দিয়ে ঘষে ঘষে ময়লা তুলতে হয়।

শেষে আবার শুকনো কাপড়ে মোছা। এতে প্রতি জানালায় খরচ হবে অন্তত ১০ মিনিট। বাড়িতে ১০টি জানালা থাকলে অন্তত দেড় ঘণ্টা। এতে পুড়বে ৩০০ ক্যালরি।

কাপড় কাচা

ওয়াশিং মেশিনের সামনে উবু হয়ে বসা, এক এক করে কাপড় ঢোকানো মানে আপনি আসলে স্কোয়াট করছেন। সচেতনভাবে স্কোয়াট করতে করতেই কাজটা করুন।

যদি ওয়াশিং মেশিন না ব্যবহার করেন, তা হলে একটা ছোট টুলে বসে কাপড় কাচুন। বারবার নিচু হয়ে মাটিতে রাখা বালতি থেকে কাপড় তুলে ধোয়ার চেষ্টা করবেন না, তাতে কোমরের ওপর বাড়তি চাপ পড়বে।

কাচা কাপড় শুকোতে দেওয়া, তোলা, ভাঁজ করা, ইস্ত্রি করার মাধ্যমেও আরও কিছু ক্যালরি খরচ হবে। সব মিলিয়ে এক ঘণ্টার কাজের শেষে অন্তত ২৫০-৩০০ ক্যালরি খরচ করতে পারবেন।

বাজার করা ও রান্না করা

বাজার করতে আপনার অন্ততপক্ষে আধ ঘণ্টা সময় লাগবে। তার মানে সেই আধ ঘণ্টা হাঁটা, সেই ভারী একটা বাজারের ব্যাগও বইলেন।

তারপর বাড়ি এসে তা পরিষ্কার করে ধুয়ে, কেটে, মসলা বেটে রান্না করুন। এই পুরো পদ্ধতি শেষ হলে অন্তত ২৫০ ক্যালরি কমাতে পারবেন।

সেই সঙ্গে খাওয়াদাওয়ায় নিয়ন্ত্রণ আনুন। খুব বেশি তেল-মসলা দিয়ে রান্না করবেন না। তা হলেই দেখবেন শরীর ভালো থাকছে।

আপনার মন্তব্য