চীনের শিডিয়ান ভার্সিটির ছাত্র দেশে অবসরে বিক্রি করছেন ‘ঝালমুড়ি’

6

রাজশাহীর পদ্মাপাড়। সন্ধ্যার আগ মুহূর্তে সুদর্শন এক যুবককে দেখা গেল ঝালমুড়ির ছোট্ট একটি দোকান দিয়ে দাঁড়িয়ে আছেন। খুবই পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন স্যুট পরা। হাতে গ্লাভস, মুখে মাস্ক। প্রথম দর্শনেই বোঝার উপায় নেই তিনি ক্রেতা না বিক্রেতা। কাছে গিয়ে জানা গেল, তিনি ঝালমুড়ি বিক্রি করছেন।
সুদর্শন যুবকটির নাম আবিদ রহমান (২২)। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) পড়াকালীন স্কলারশিপ পেয়ে চীনের শিডিয়ান ইউনিভার্সিটিতে ভর্তি হন। কিন্তু করোনার কারণে চীনে যাওয়া হয়ে ওঠেনি। এ অবসরে নিজেকে ভিন্নধর্মী উদ্যোক্তা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। রাজশাহীর পদ্মা গার্ডেন এলাকায় স্যুটবুট পরেই বিক্রি করছেন খুলনার বিখ্যাত ‘চুই মরিচের ঝালমুড়ি’।
যশোরের অভয়নগরের সম্ভ্রান্ত পরিবারের সন্তান আবিদ। পরিবারের প্রায় সবাই উচ্চশিক্ষিত, প্রতিষ্ঠিত। বাবা আব্দুর রহিম মোল্লা প্রথম জীবনে শিক্ষকতা করলেও পরে পুরোদস্তুর ব্যবসায়ী হয়েছেন। ১৯৭৮ সালে এসএসসি পাস করা মা সুফিয়া রহিম গৃহিণী। বড় ভাই জার্মানি থেকে এমএসসি করে হংকং সিটি বিশ্ববিদ্যালয়ে পিএইচডি করছেন। ভাবি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগ থেকে লেখাপড়া শেষ করেছেন। মেজ ভাই স্নাতকোত্তর শেষ করে ‘নগদ’-এ চাকরি করেন।
আর্থিকভাবে সচ্ছল পরিবারের সদস্য হয়েও ঝালমুড়ি বিক্রি করছেন, এমনটা খুব বেশি দেখা যায় না। আলাপকালে আবিদ বলেন, ‘একজন উদ্যোক্তা হিসেবে ইউনিক কিছু করতে চেয়েছি। ইউনিক কিছুর মধ্যে অনেকে দেখছি মধু, ঘি, খেজুর গুড়, পোশাকসহ বিভিন্ন আইটেম নিয়ে কাজ করছেন। ভেবে দেখলাম, মানুষকে ভিন্নধর্মী জিনিসের স্বাদ দিতে হবে, তবেই সফল হওয়া যাবে। তখন এই ঝালমুড়ি বিক্রির কথা মাথায় আসে।’

আপনার মন্তব্য