চুরি যাওয়া নবজাতক উদ্ধার, সেই নারী আটক

10

স্টাফ রিপোর্টার: রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতাল থেকে চুরি হওয়া তিন দিনের নবজাতককে উদ্ধার করা হয়েছে। শনিবার (২৩ জানুয়ারি) বেলা সোয়া ১টার দিকে নগরীর মোন্নাফের মোড় পল্টুর বস্তি থেকে বিশেষ অভিযান চালিয়ে ওই নবজাতককে উদ্ধার করে নগর পুলিশ।

এই ঘটনায় গ্রেফতরা করা হয়েছে নবজাতক চুরিকাণ্ডে যুক্ত  মৌসুমি খাতুনকে (২২)। তিনি  ওই বস্তির হোসেন আলীর মেয়ে। মৌসুমি স্বামী সজিব আলীর সাথে ওই বস্তিতে থাকতেন।

নগর গোয়েন্দা পুলিশের সহকারী কমিশনার (এসি) রাকিবুল হাসান এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, গোপন সংবাদ পেয়ে ওই বস্তিতে সাঁড়াশি অভিযান চালায় নগর পুলিশ। এতে নগরীর রাজপাড়া থানা ও গোয়েন্দা পুলিশের সদস্যরা।

হারিয়ে যাবার ২৭ ঘণ্টা পর অখ্যত অবস্থায় উদ্ধার করা হয় ওই নবজাতককে। আটক করা হয় নবজাতক চরির সাথে জড়িত মৌসুমি খাতুনকে। 

এসি আরো জানান, নবজাতকসহ অভিযুক্তকে নগর গোয়েন্দা পুলিশ কার্যালয়ে নেয়া হয়েছে। নবজাতকের বাবা ও দাবি এসেছেন। তার মা হাসপাতালে থাকায় নবজাতককে সেখানে নেয়া হচ্ছে।

তিনি বলেন, নবজাতক চরির ঘটনায় আটক মৌসুমির উদ্দেশ্য ও অতীত রেকর্ড খতিয়ে দেখছে পুলিশ। বিকেল ৩টায় নগর ডিবি কার্যালয়ে অভিযানের আদ্যপান্ত জানানো হবে বলেও জানান এসি।

গতকাল শুক্রবার (২২ জানুয়ারি) সকাল ৯টার দিকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের ২৩ নম্বর ওয়ার্ড থেকে হারিয়ে যায় তিন দিনের নবজাতক। 

মা শিল্পী রবিদাস কমলির চোখ ফাঁকি দিয়ে মাত্র দুই মিনিটের মধ্যেই হাসপাতাল থেকে তিন দিনের নবজাতককে নিয়ে উধাও হন মৌসুমি। কিন্তু ঘটনার সময় ওই হাসপাতালের সব সিসিটিভি ক্যামেরা বন্ধ ছিলো। ফলে নবজাতক উদ্ধারে নেমে বেগ পেতে হয়েছে পুলিশকে। পরে ঘটনা তদন্তে ৫ সদস্যের কমিটিও গঠন করে রামেক হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। 

নবজাতকের বাবা মাসুম রবিদাস রামেক হাসপাতালের জরুরি বিভাগের সামনেই মাসুম জুতা সেলাইয়ের কাজ করেন। তিনি নগরীর লক্ষ্মীপুর আইডি হাসপাতাল রবিদাসপাড়ার বাসিন্দা। প্রথম সন্তান হারিয়ে পাগলপ্রায় অবস্থা এই দম্পতির। 

আপনার মন্তব্য