পুঠিয়া পৌরসভায় কুপ খননেই সীমাবদ্ধ বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ

2
পুঠিয়া পৌরসভায় কুপ খননেই সীমাবদ্ধ বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ

এইচ এম শাহনেওয়াজ: জন্মলগ্ন থেকেই প্রতিশ্রুতি ছিল পৌরবাসীদের মাঝে সুপেয়পানি সরবরাহ নিশ্চিত করণ। রাজশাহীর পুঠিয়া পৌরসভা প্রতিষ্ঠার ২০ বছর পেরিয়ে গেলেও আজও সেই প্রতিশ্রæতি বাস্তবায়ন হয়নি। কিš‘ তদারকির অভাবে কুপ খননের ১০ বছর পেরিয়ে গেলেও পানি সরবরাহ শুধুমাত্র পাইপের মধ্যেই সীমাবদ্ধ রয়েছে। পৌরবাসীদের অভিযোগ নিয়মমিত সকল পৌরকর পরিশোধ করেও তাদের নূন্যতম নাগরিক সুবিধা নেই।

পৌরসভার সংশ্লিষ্ঠ সূত্রে জানাগেছে ২০০১ সালে পুঠিয়া সদর ও জিউপাড়া ইউপির অংশ বিশেষ নিয়ে গঠিত হয় পুঠিয়া পৌরসভা। বর্তমানে পৌরসভায় মোট ভোটার সংখ্যা ১৬ হাজার ৬৩৩ জন। আর এই পৌরবাসীদের বিশুদ্ধ পানি সরবরাহের জন্য গত প্রায় ১০ বছর আগে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার বাসভবনের দক্ষিন পাশে একটি গভীর নলকুপ স্থাপন করা হয়। এরপর ওই কুপ থেকে কখনোই পানি উত্তোলন করা হয়নি। বর্তমানে কুপটি অযত্নে অবহেলায় পতিত অবস্থায় পড়ে আছে।

নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিরা বলছেন, পৌরসভা প্রতিষ্ঠার ২০ বছরে ‘গ’ থেকে ‘খ’ শ্রেণীতে উন্নতি হলেও এখনো তার নিজেস্ব ভবন নেই। জন্মলগ্ন থেকেই পৌরসভার কার্যক্রম পরিচালিত হয়ে আসছে ভাড়া বাসা-বাড়িতে। তবে পৌরভবন নির্মাণে দু’তিনটি স্থান নির্বাচন করা হয়েছে। তার মধ্যে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বাসভবনের দক্ষিন পাশে ছিল প্রথম স্থানে সে মোতাবেক ওখানে গভীর নলকুপ স্থাপন করা হয়। বর্তমানে ওই স্থানে উপজেলা ভূমি অফিস নির্মাণ কাজ চলছে। আর ওই কুপ ঘেষে দেয়াল নির্মাণ করা হয়েছে।

পৌরসভার সহকারী প্রকৌশলী শহিদুল ইসলাম বলেন, পৌর এলাকায় বিশুদ্ধ পানি সরবরাহের জন্য কয়েক বছর আগে উপজেলা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল বিভাগ একটি গভীর নলকুপ স্থাপন করেন। কুপ খননের পর এই কাজের আর কোনো অগ্রগতি হয়নি। তবে নতুন করে পানি সরবরাহ কাজের বরাদ্দ আসলে তা অবশ্যই বাস্তবান করা হবে।

উপজেলা জনস্বাস্থ্য অধিদপ্তরের উপসহকারী প্রকৌশলী সাইফুল ইসলাম বলেন, পৌরসভা এলাকায় সুপেয়পানি সরবরাহ করতে বিগত দিনে একটি গভীর নলকুপ ¯’াপন করা হয়। আর এটি বাস্তবায়ন করেন জনস্বা¯’্য বিভাগের গ্রাউন ওয়াটার ডিভিশন। সে সময় ওই কুপটি খনন করতে প্রায় চার লাখ টাকা ব্যয় হয়। বর্তমানে সেখানে ভূমি অফিস নির্মাণ হলেও ওই কুপ থেকে আন্ডার গ্রাউন পাইপের মাধ্যমে এখনো পানি সরবরাহ করা সম্ভব।

এ ব্যাপারে পৌর মেয়র আল মামুন খান বলেন, আমি নির্বাচিত নতুন মেয়র। আমার জানামতে পৌরসভা এখনো নাগরিকদের চাহিদা পুরণ করতে পারেনি। তবে আশা করি নাগরিকরা পর্যায়ক্রমে সকল সুবিধা পাবেন। আর যদ্দুর জানি পানি সরবাহের একটি প্রকল্প মন্ত্রণালয়ে সম্প্রতি অনুমোদন হয়েছে। তবে এখনো তার কোনো কাগজপত্র আমরা হাতে পাইনি। আশা করি এই প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হলে সকল পৌরবাসী বিশুদ্ধ পানির সুবিধার আওতায় আসবেন।

আপনার মন্তব্য