প্রেমিকের পর আত্মহত্যা প্রেমিকার

55
প্রেমিকের পর আত্মহত্যা প্রেমিকার

ক্যাম্পাস ডেস্ক: গত ১৫ জুন আত্মহত্যা করেন তপু মজুমদার। তিনি কুয়েট শিক্ষার্থী। এরপর গতকাল (শনিবার) সন্ধ্যা ৬টার দিকে শনিবার গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন সুপ্রিয়া দাস।

তিনি বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিত বিভাগে মাস্টার্সে অধ্যায়নরত ছিলেন। তার পরিবার ও সহপাঠী সূত্রে জানা যায়, মানসিক অবসাদ থেকে তিনি আত্মহত্যা করেছেন।

জানা গেছে, তপু-সুপ্রিয়া দুজনের মধ্য ছিল প্রেমের সম্পর্ক। দুজনের বাড়ি ফরিদপুর জেলায়। উচ্চমাধ্যমিক পর্যায় থেতে তাদের মধ্য প্রেমের সম্পর্ক। দুজনের সম্পর্ককে মেনেও নিয়েছিলেন পরিবার।

সুপ্রিয়া দাসের এক বন্ধু জানায়, গত ১৪ জুন রাতে দুজনের মধ্যে ঝগড়া হয়। পরের দিনই জানতে পারেন তপু আত্মহত্যা করেছেন। তারপর থেকেই মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয় সুপ্রিয়া। সেই অবসাদ থেকেই তিনি আত্মহত্যা করছেন বলে জানান পরিবার ও বন্ধুরা।

এবিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. সুব্রত কুমার দাস কালের কণ্ঠকে বলেন, গতকাল সন্ধ্যায় তার বাবার সঙ্গে ফোনে কথা হয়েছে। জানতে পেরেছি তার ছেলে বন্ধু কিছুদিন আগে সুইসাইড করেছিল। তার বাবার কথা অনুয়ায়ী সেই ডিপ্রেশন থেকে সম্ভবত এটা হয়েছে।

এদিকে সুপ্রিয়ার ডিপ্রেশনজনিত আত্মহত্যার ঘটনায় শোকে স্তব্দ পুরো ক্যাম্পাসে। বিশ্ববিদ্যালয়ে মনস্তাত্ত্বিক পরামর্শ সেল গঠনের দাবি জানিয়েছেন শিক্ষার্থীরা।

আপনার মন্তব্য