প্রেমিকের হাত ধরে পালাতে গিয়ে ধর্ষণের শিকার কিশোরী

6
ঘুমের ওষুধ খাইয়ে প্রেমিকাকে ধর্ষণ, ছাত্রলীগ সভাপতির নামে মামলা

দেশজুড়ে ডেস্ক: জামালপুর দেওয়ানগঞ্জের ডাংধরা ইউনিয়নের জোয়ানের চর সরকার পাড়া গ্রামের আব্দুল কাদেরের নবম শ্রেণি পড়ুয়া (১৫) এক শিক্ষার্থী কথিত প্রেমিকের হাত ধরে রাতের আঁধারে পালিতে গিয়ে দুই বখাটের ধর্ষণের শিকার হয়েছে।

ধর্ষিতা ছাত্রীর পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, গত ৫ অক্টোবর রাত ১১টার দিকে আব্দুল কাদেরের মেয়ে ও চর আমখাওয়া ইউনিয়নের সিলেটপাড়া গ্রামের আব্দুল কুদ্দুসের ছেলে দুই সন্তানের জনক মোমিনুল ইসলামের (৪০) হাত ধরে পালিয়ে যায়।

গভীর রাতে কিশোরীকে টোকমাথা বাজারের কাছে একজনের সাথে পলায়ন করতে দেখে জোয়ানের চর সরকার পাড়া  গ্রামের মৃত শাহাবুদ্দিনের ছেলে মমিনুল (২৩) ও সাইদুরের ছেলে আলমগীর (২২) মেয়েটিকে আশ্রয় দেওয়ার কুমতলব আঁটে।

মেয়েকে প্রেমিকসহ আলমগীর নিজ বাড়িতে নিয়ে যায়। মাঝরাতে প্রেমিককে বেঁধে দুজন সেই কিশোরীকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। রাত ৩টার দিকে ধর্ষণ শেষে দুজন পালিয়ে যায়। পরে প্রেমিক মোমিনুল তার প্রেমিকাকে নিজ বাড়িতে পৌছে দিয়ে সে-ও পলায়ন করে।

পর দিন ধর্ষিতা কিশোরী তার পরিবারকে সবকিছু জানালে গ্রাম্য সালিসে প্রেমিক মোমিনুলকে জরিমানা করা হয়। ধর্ষিতার চাচা ঈমান আলী জানায়, ৭ অক্টোবর জামালপুর কোর্টে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

ধর্ষিতার কথিত প্রেমিক মোমিনুলকে সাক্ষী করে ধর্ষিতা বাদী হয়ে দুই ধর্ষক মমিনুল এবং আলমগীরকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেছে। তবে এখনো কেউ গ্রেপ্তার হয়নি।

দেওয়ানগঞ্জ মডেল থানার ওসি এম এম ময়নুল ইসলাম কালের কণ্ঠকে জানান, এই বিষয়ে থানায় কেউ কোনো অভিযোগ করেনি। আমি সেখানকার পুলিশ তদন্তকেন্দ্রকে এর মধ্যে ঘটনাস্থলে পাঠিয়েছি তারা সব কিছু খতিয়ে দেখছে। আমি জেনেছি, কোর্টে একটি মামলা হয়েছে। মামলাটি পিবিআই এর কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

আপনার মন্তব্য