সেই যুবক সন্ত্রাসী কিনা খতিয়ে দেখছে পুলিশ

4

স্টাফ রিপোর্টার: রাজশাহী নগরীতে কর্তব্যরত ট্রাফিক পুলিশের সার্জেন্ট বিপুল কিশোরকে মারধরকারী যুবক বেলাল হোসেন সন্ত্রাসী কিনা তা খতিয়ে দেখছে পুলিশ। একই সঙ্গে তার অতীত কর্মকাণ্ড বিশ্লেষণ করে দেখা হচ্ছে। 

বৃহস্পতিবার রাত থেকে নগরীর রাজপাড়া থানায় তার জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করেছে পুলিশ। এর আগে দুপুরে ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে বেলালকে রাজশাহীর মহানগর হাকিম আদালতে নেয়া হয়। শুনানি শেষে আদালত এক দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। আইনী প্রক্রিয়া শেষে রাতে থানায় নেয়া হয় তাকে।

এর আগে অভিযুক্ত বেলাল হোসেন (২৬) নগরীর লক্ষ্মীপুর ভাটাপাড়া এলাকার শামসুল হকের ছেলে। 

 বুধবার (২০ জানুয়ারি) রাত ১টার দিকে নাটোর মাদরাসা মোড় থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে রাজশাহী মহানগর পুলিশ। মধ্যরাতে রাজশাহী ছেড়ে যাওয়ার সময় পুলিশের হাতে ধরা পড়েন তিনি।

এর আগে মঙ্গলবার (১৯ জানুয়ারি) নগরীর সিটি বাইপাস ঐতিহ্য চত্বরে দায়িত্বপালন করছিলেন সার্জেন্ট বিপুল কিশোর। উল্টো পথে যাওয়া এবং হেলমেট না থাকায় তিনি মোটরসাইকেল আরোহী ওই যুবকের পথরোধ করেন। সেই সঙ্গে গাড়ির কাগজপত্র দেখতে চান সার্জেন্ট বিপুল।

এ নিয়ে সার্জেন্ট বিপুলের সঙ্গে বেলাল তর্কে জড়ান। একপর্যায়ে সার্জেন্টের ওপর চড়াও হন তিনি। তখন পাশের ফার্নিচারের দোকান থেকে কাঠ এনে সার্জেন্টকে পেটাতে শুরু করেন বেলাল।

এ ঘটনায় মঙ্গলবার রাতেই নগরীর রাজপাড়া থানায় বেলালকে একমাত্র আসামি করে মামলা করেন সার্জেন্ট বিপুল। ঘটনার পর থেকেই আত্মগোপনে ছিলেন বেলাল। 

বৃহস্পতিবার (২১ জানুয়ারি) দুপুরে বেলালকে আদালতে নেয় রাজপাড়া থানা পুলিশ। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তার ১০ দিনের রিমান্ড চাওয়া হয়।

এসব তথ্য নিশ্চিত করে নগরীর রাজপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাজহারুল ইসলাম বলেন, পুলিশের ওপর হামলার কারণ ও হামলাকারী সন্ত্রাসী কিনা তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। অতীত কর্মকাণ্ড ও মাদকের সঙ্গে তার সংশ্লিষ্টতা আছে কিনা তাও অনুসন্ধান করে দেখছে পুলিশ।

গ্রেপ্তারের পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশকে কিছুই জানাননি বেলাল। এজন্য ১০ দিনের রিমান্ড চাওয়া হয়েছে তার। আদালতের আদেশের পর তার বিষয়ে ব্যবস্থা নেবে পুলিশ।

এর আগে বেলা ১১টার দিকে নিজ দপ্তরের সম্মেলন কক্ষে এ ঘটনায় আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে মহানগর পুলিশ কমিশনার আবু কালাম সিদ্দিক বলেন, হামলাকারীর মোটরসাইকেলের কাগজপত্র মেয়াদোত্তীর্ণ। 

বিআরটিএতে খোঁজ নিয়ে বিষয়টি নিশ্চিত হয়েছি আমরা। তার হেলমেটও ছিল না। উল্টোপথে যাচ্ছিলেন তিনি। এ কারণে কর্তব্যরত সার্জেন্ট তাকে থামান। মামলা দিতে গেলে উত্তেজিত হয়ে কাঠ দিয়ে মারপিট শুরু করেন বেলাল।

পুলিশ কমিশনার আবু কালাম সিদ্দিক বলেন, ২২ বছরের চাকরি জীবনে এমন নৃশংস ঘটনা দেখিনি। হামলাকারী সন্ত্রাসী কিনা, তার অতীত কর্মকাণ্ড ও মাদকের সঙ্গে সংশ্লিষ্টতা আছে কিনা তাও খুঁজে বের করা হবে।

আপনার মন্তব্য