হোয়াইট হাউসের আরও কাছে বাইডেন

বিদেশ ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ভোট গণনা এখনো চলছে। নিউইয়র্ক টাইমসের সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, এ পর্যন্ত ডেমোক্রেট প্রার্থী জো বাইডেন ২৫৩টি ইলেকটোরাল ভোট পেয়েছেন।

আর রিপাবলিকান প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প পেয়েছেন ২১৪টি। কোনো কোনো গণমাধ্যম অ্যারিজোনায় বিজয় দেখিয়ে বাইডেনের ইলেকটোরাল কলেজ ভোটের সংখ্যা ২৬৪ দেখিয়েছে।

এবারের নির্বাচনে আগাম ও পোস্টাল ব্যালটে ভোট দেওয়ার প্রবণতা দেখে ধারণা করা হচ্ছিল, মূলত বাইডেনের সমর্থকরা আগাম ভোট দিচ্ছেন। এর কারণ ছিল দুটি। প্রথমত, ট্রাম্প ও রিপাবলিকানদের পক্ষ থেকে এক ধরনের অরাজকতার হুমকি ছিল।

যে কারণে ডেমোক্রেটরা ভোটকেন্দ্রে না গিয়ে আগাম ভোট দিচ্ছিলেন। এ ছাড়া, বাইডেনসহ যারা ডেমোক্রেটদের পক্ষে নির্বাচনী প্রচারণা চালিয়েছিলেন, তারা সব সময়ই ভোটারদের আগাম ভোট দিতে উদ্বুদ্ধ করেছিলেন। দ্বিতীয়ত, করোনার সংক্রমণের কারণে ভিড় এড়াতে ভোটাররা আগাম ভোটের পথ বেছে নেন।

নিউইয়র্ক টাইমসের সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, বর্তমানে ‘কি-ফেক্টর’ রাজ্যগুলোতে বাইডেনের অবস্থান ক্রমেই ভালো হচ্ছে। রাজ্যগুলো হলো— জর্জিয়া, পেনসিলভেনিয়া, অ্যারিজোনা, নেভাদা ও উত্তর ক্যারোলিনা।

যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণ-পূবাঞ্চলীয় রাজ্য জর্জিয়াতে ট্রাম্প প্রথম দিকে তিন পয়েন্টে এগিয়ে ছিলেন। কিন্তু, ৯৮ শতাংশ ভোট গণনার পর বর্তমানে সেই ব্যবধান কমে দশমিক এক পয়েন্টে এগিয়ে রয়েছেন ট্রাম্প। বিশেষজ্ঞদের ধারণা, শেষ পর্যন্ত রাজ্যটিতে জয় বাইডেনের পক্ষেই যাবে। রাজ্যটিতে মোট ১৬টি ইলেকটোরাল কলেজ ভোট রয়েছে।

পেনসিলভেনিয়ায় ২০টি ইলেকটোরাল ভোট রয়েছে। রাজ্যটিতে ট্রাম্প প্রথম দিকে অনেক ব্যবধানে এগিয়ে ছিলেন। তবে, গত দুই দিন ধরে পর্যায়ক্রমে এই ব্যবধান কমেছে।

৯৫ শতাংশ ভোট গণনার পর রাজ্যটিতে এখন দশমিক তিন পয়েন্টে এগিয়ে আছেন ট্রাম্প। এখনো যেই পাঁচ শতাংশ ভোট গণনা বাকি, এর মধ্যে দুই বা তিন শতাংশ গণনা শেষ হতে হতেই বাইডেনই এখানে জিতবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

অ্যারিজোনাতে প্রথম অবস্থাতে বাইডেন তিন পয়েন্টে এগিয়ে থাকলেও ৯০ শতাংশ ভোট গণনা শেষে ব্যবধান কমেছে। বর্তমানে সেখানে বাইডেন এক দশমিক পাঁচ পয়েন্টে এগিয়ে রয়েছেন। রাজ্যটিতে ১১টি ইলেকটোরাল ভোট রয়েছে।

গত কয়দিন ধরে আলোচনায় থাকা লাস ভেগাসের নেভাদায় প্রথম থেকেই এগিয়ে রয়েছেন বাইডেন। প্রথম দিকে তিনি দশমিক ছয় পয়েন্টে এগিয়ে থাকলেও ৮৯ শতাংশ ভোট গণনা শেষে এখন সেই ব্যবধান বেড়ে দশমিক নয় পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। এখানে ছয়টি ইলেকটোরাল ভোট রয়েছে।

উত্তর ক্যারোলিনায় ৯৫ শতাংশ ভোট গণনা শেষে এক দশমিক চার পয়েন্টে এগিয়ে রয়েছেন ট্রাম্প। এখানে ১৫টি ইলেকটোরাল ভোট রয়েছে।

নির্বাচনের সর্বশেষ তথ্য বিশ্লেষণে বিশেষজ্ঞদের ধারণা, জয়ের পথেই হাঁটছেন ডেমোক্রেট প্রার্থী জো বাইডেন। যা আজকের মধ্যেই হয়তো নিশ্চিত হয়ে যেতে পারে।

মার্কিন সংবাদমাধ্যমের তথ্য অনুযায়ী, ভোট গণনা যত শেষের দিকে যাচ্ছে, ট্রাম্পের পক্ষ থেকে ভোট গণনায় কারচুপির অভিযোগও তত দৃঢ় হচ্ছে। ভোট কারচুপি ও ব্যালটে ফলস ভোট পড়ার দাবি তুলে নির্বাচনের বিষয়টিকে বিতর্কিত করে ট্রাম্প সুপ্রিম কোর্টে যাওয়ার চেষ্টা করছেন বলেই ধারণা করছেন বিশেষজ্ঞরা।

তারা বলছেন, শুরু থেকেই ট্রাম্প ও রিপাবলিকানদের মধ্যে ধারণা ছিল যে, এবার তারা জিততে পারবেন না। এ কারণেই একটু এগিয়ে যাওয়ার পরপরই নিজেকে বিজয়ী ঘোষণা দেওয়ার পরিকল্পনা ছিল ট্রাম্পের। যেহেতু রিপাবলিকানরা ভোটের দিন সরাসরি ভোট দিয়েছেন, তাই ভোট গণনার শুরুতে ট্রাম্পই এগিয়ে ছিলেন।

আর এর ভিত্তিত্তে ট্রাম্প নিজেকে বিজয়ী ঘোষণা করেছেন। যদিও আইনগতভাবে এই কাজটি করা যায় না। পরে যখন আগাম ভোট গণনা শুরু হয়, তখন জয়ের পথে এগোতে থাকেন বাইডেন।

Leave a Reply