প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় হত্যা, মৃত্যুদণ্ড যুবকের

স্টাফ রিপোর্টার: সম্পত্তি হাতাতে মিথ্যা দাদা দাবি করেছিলেন  আইয়ুব আলী নামের এক ব্যক্তি। এ জন্য দেওয়ানি আদালতে মামলাও করেন। 

আদালতে শুনানী চলাকালে হাজির করেন সাজানো সাক্ষি। কিন্তু জেরার মুখে সেই সাক্ষি ফাঁস করে দেন আসল ঘটনা। তাতেই ধরা পড়ে যায় জারিজুরি। 

সম্পত্তি তো পাননি উল্টো মিথ্যা মামলা দায়ের করায় ১০ হাজার টাকা জরিমানা গুনতে হয়েছে বাদি আইয়ুব আলীকে। একই সাথে সেই মামলাটি খারিজ করে দেন আদালত।

সোমবার জনাকীর্ণ আদালতে রাজশাহীর (তানোর) সহকারী জজ আদালতের বিচারক আলমগীর হোসেন এই রায় দিয়েছেন।

ধূর্ত আইয়ুব আলী রাজশাহীর তানোর উপজেলার বাসিন্দা। 

আদালতের বেঞ্চ সহকারী আক্তারুজ্জামান লিটন এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

মামলার বিবরণে জানা গেছে, মমিন মণ্ডল নামের এক ব্যক্তিকে আপন দাদা (পিতামহ) দাবি করে তার সম্পত্তিতে অংশ চেয়ে তানোর সহকারী জজ আদালতে ৫৩/১২ অপ্র মামলা করেন আইয়ুব আলী। 

বাদি উল্লেখ করেন, মমিন মণ্ডলের সন্তান করিম বক্স ও এলাহী বক্স। এদের মধ্যে করিম বক্স তার বাবা এবং এলাহী বক্স চাচা। 

আদালত সূত্র জানাচ্ছে, আইয়ুব আলীর হয়ে আদালতে সাক্ষ্য দিতেও আসেন এলাহী বক্স। তিনি আদালতকে জানান, বাদী আইয়ুব আলীর দাদা মমিন মণ্ডল নন, আলিম মণ্ডল। এলাহী বক্সের সাক্ষ্যের সঙ্গে বাদীর দাবির আরও অনেক গরমিল ধারা পড়ে আদালতে।

 এছাড়াও পুরাতন খতিয়ান ও সাক্ষ্যপ্রমাণ থেকে বেরিয়ে আসে মমিন মণ্ডলের দুই সন্তান হায়াত বক্স ও আতেজান। কিন্তু সম্পত্তিতে ভাগ বসাতে মমিন মণ্ডলকে মিথ্যা দাদা দাবি করেন আইয়ুব আলী। 

মামলাটি মিথ্যা প্রতিপন্ন হওয়ায় আদালত বাদী আইয়ুব আলীকে ১০ হাজার টাকা খরচারোপ করেন। একই সাথে মামলাটি খারিজ করে দেন আদালত। খরচার এই অর্থ বিবাদী প্রাপ্ত হবেন বলেও আদেশ দেন আদালত।

Leave a Reply