প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় হত্যা, মৃত্যুদণ্ড যুবকের

স্টাফ রিপোর্টার, রাজশাহী: দীর্ঘদিন ধরেই গৃহস্থালির কাজে রাজশাহীর বগামারা উপজেলার কাতিলা এলাকার লোকজন ব্যবহার করে আসছেন সরকারী ৫টি পুকুর। সেচের পানির যোগানও আসছিল পুকুরগুলো থেকে।

সম্প্রতি পুকুরগুলো ইজারা দেয়ার চেষ্টা করে উপজেলা জলমহল ইজারা কমিটি। এতে বিপাকে পড়েন এলাকাবাসী। শেষে বিষয়টি গড়ায় আদালতে।

গ্রামবাসীর পক্ষে সিদ্দিকুর রহমান পুকুরগুলো ইজারায় নিষেধাজ্ঞা চেয়ে রাজশাহীর সিনিয়র সহকারী জজ (বাগমারা) আদালতে মামলা করেন। মামলা নম্বর ০৬/২০১৮ অ. প্র.। 

শুনানী শেষে বুধবার (২৫ আগস্ট) পাঁচটি পুকুরের মধ্যে চারটি ইজারায় অস্থায়ী নিষেজ্ঞাজ্ঞা জারি করেছেন আদালত। অ্যাডভোকেট শাহিন আরা খাতুন এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এদিকে, আদালতের বেঞ্চ সহকারী আবদুর রাজ্জাক জানান, পুকুরগুলো সরকারী। কিন্তু চারটি পুকুর ‘সর্বসাধারণের ব্যবহার্য জলাশয়’ হিসেবে আরএস খতিয়োনে রেকর্ডভুক্ত হয়েছে। এই দাগগুলোর পাশে স্থানীয় ‘সাধারণের পানি সেচনের প্রয়োজন হেতু বন্দোবস্তের বহির্ভূত’ ‍উল্লেখ আছে।

তাছাড়া সরকারী জলমহল ব্যবস্থাপনা নীতি অনুযায়ী সর্বসাধারণের ব্যবহার্য জলাশয় লিজ প্রদানের সুযোগ নেই। তা সত্ত্বেও পুকুরগুলো লিজ প্রদানের উদ্দেশ্য আদালতের বিবেচনায় এখতিয়ার বহির্ভুত, বেআইনী এবং সরকারের নীতিবরুদ্ধ বলে প্রতীয়মান হয়েছে। 

ফলে একটি বাদে চারটি পুকুর লিজ কিংবা জনসাধারণে ব্যবহারে বাধা প্রদাণ নিষিদ্ধ করে অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা দিয়েছেন আদালত। একই সাথে এই সম্পতি লিজ প্রদান করা হয়ে থাকলে সেটিও নিষেধজ্ঞার আওতায় আসবে। আগামী ১২ অক্টোবর মামলাটির চুড়ান্ত শুনানীর জন্য দিন ধার্য করেন আদালত।

Leave a Reply