বিচারক-ওসি পরিচয়ে ফোন, ৪ লাখ টাকা খোয়ালেন চেয়ারম্যান

প্রিয় দেশ ডেস্ক: নোয়াখালীর সুবর্নচর উপজেলার চরজব্বর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. জিয়াউল হকের সরকারি মোবাইল নম্বর থেকে ফোন গিয়েছিল উপজেলার ৪নং চরওয়াপদা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. মনির আহমেদের কাছে। 

ফোন এসেছিল নোয়াখালির চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট পরিচয়েও। এ দুটি ফোনকল পেয়ে চার লাখ টাকা বিকাশ করে ধরা খেয়েছেন চেয়ারম্যান। 

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ঘটনা ঘটে। এনিয়ে ওই রাতেই ইউপি চেয়ারম্যান মো. মনির আহমেদ চরজব্বর থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন। 
 

চরজব্বার থানা পুলিশ জানায়, আগামী ২০ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠেয় ইউ পি নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী মো.মনির আহমেদের ব্যক্তিগত মোবাইল নম্বরে বৃহস্পতিবার দুটি নাম্বার থেকে কল আসে।

এ সময় কলদাতা নিজেকে অফিসার ইনচার্জ চরজব্বর থানা বলে পরিচয় দিয়ে আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নির্বাচনকে প্রভাবিত করার জন্য বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তাদেরকে ম্যানেজ করার উদ্দেশ্যে তার নিকট টাকা চান। 

অপর আরেকটি ফোনকলে চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নোয়াখালী পরিচয় দিয়ে অন্যান্য অফিসারদেরকে ম্যানেজ করার জন্য চার লক্ষ টাকা পাঠানোর জন্য বলেন।

পরে তাদের কথা অনুযায়ী চেয়ারম্যান ব্যক্তিগত ৮টি বিকাশ নম্বরের মাধ্যমে পঞ্চাশ হাজার টাকা করে চার লক্ষ টাকা পাঠান।     

চেয়ারম্যান মনির আহমেদ জানান, টাকা পাঠানের পর ওসি পরিচয় দানকারী ব্যক্তি রাত নয়টার দিকে তাকে থানায় গিয়ে এ-সংক্রান্ত পরবর্তী কার্যক্রম সম্পর্কে জানতে বলেন। পরে গতকাল রাত সাড়ে ১০টার দিকে চেয়ারম্যান থানায় গিয়ে ওসির সঙ্গে কথা বলে প্রতারণার শিকার হয়েছেন বলে বুঝতে পারেন।

চর জব্বার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. জিয়াউল হক বলেন, বৃহস্পতিবার বিভিন্ন সময় আমার ব্যবহৃত সরকারি মোবাইল নম্বরটি (০১৩২০১১১১৬৩) ক্লোন করে একাধিক ব্যক্তিকে বিভিন্নভাবে প্রতারিত করার খবর ভুক্তভোগী কয়েকজন সরাসরি থানায় এসে জানান। 

তিনি আরও জানান,  এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে। তিনি সবাইকে সতর্ক থাকার আহ্বান করেন।

Leave a Reply