মাছচাষি হত্যায় নওগাঁ থেকে গ্রেফতার ৪

স্টাফ রিপোর্টার, রাজশাহী: রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার গোগ্রামের মাছচাষি মাসুদ রানা (৪৫) হত্যার রহস্যজট খুলেছে। হত্যাকাণ্ডের ২৪ দিন পর গ্রেফতার হয়েছেন একে একে চার অভিযুক্ত। 

গত তিন দিনে নওগাঁ জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করে গোদাগাড়ী মডেল থানা পুলিশ।

এরা হলেন-নওগাঁর বদলগাছি উপজেলার ভোলারপালমা এলাকার আবদুল মতিনের ছেলে আবদুল লতিফ (৪০), জেলার সদর উপজেলার ফরাদপুরের বসির খাঁ ওরফে মন্টুর ছেলে রেজাউল ইসলাম (৫০), দক্ষিণ পার নওগাঁর ফসির উদ্দিনের ছেলে আবদুল করিম ওরফে জনি (২৫) এবং আরাজি নাপিতপাড়া এলাকার দুলালের ছেলে মোঃ শাহীন (৩৪)।

এদের মধ্যে রেজাউল ইসলাম, আবদুল করিম ওরফে জনি ও শাহীন বৃহস্পতিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দিয়েছেন। 

গোদাগাড়ী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুল ইসলাম এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন। 

তিনি বলেন, এই চারজন ছাড়াও এই কাণ্ডে যুক্ত রয়েছেন আরও ৫ থেকে ৬ জন। এরা সবাই পেশাদার মাছ চোর। রাজশাহী, নওগাঁ, বগুড়া ও জয়পুরহাটের বিভিন্ন পুকুরে মাছ চুরির ঘটনায় জড়িত তারা।

গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে প্রথমে গ্রেফতার করা হয় আবদুল লতিফকে। রিমাণ্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদে তিনি পুলিশকে অন্যদের বিষয়ে তথ্য দেন। এরপর গ্রেফতার করা হয় রেজাউল ইসলামকে। এই দুজনের তথ্যের ভিত্তিতে জনি ও শাহীনকে গ্রেফতার করা হয়।

পুলিশের জেরার মুখে তারা স্বীকার করেছেন, রাতে ছোট ট্রাক নিয়ে তারা ঘুরে বেড়ান। এরপর সুবিধামতো স্থানে মাছ চুরি করে নিয়ে যান। প্রায় ৮০ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে সেদিন তারা গোদাগাড়ীতে হানা দিয়েছিলেন। 

কিন্তু ওই সময় পুকুরপাড়ের টঙঘরে মাছ চাষি মাসুদ রানা ও পাহারাদার লিটন ঘুমিয়েছিলেন। তাদের পিছমোড়া করে বেধে ফেলে রেখে মাছ তুলতে পুকুরে জাল নামান দুর্বৃত্তরা। কিন্তু মাছ চাষির জেলেরা চলে আসায় জাল ফেলে রেখে পালিয়ে যান। 

ওসি আরো জানান, সেদিন চোরের দলে নয় জন ছিলেন। আর ওই দুজনকে বেঁধেছিলেন আটজন মিলে। বৃহস্পতিবার গ্রেফতার তিনজন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। এই ঘটনায় জড়িত অন্যদের গ্রেফতারের চেষ্টা চালাচ্ছে পুলিশ।

 প্রসঙ্গত, গত ২৯ আগস্ট দিবাগত গভীর রাতে রাজশাহী-চাঁপাইনবাবগঞ্জ মহাসড়ক সংলগ্ন গোগ্রাম ইউনিয়নের লালাদিঘি এলাকার নিজের লিজ নেয়া পুকুরপাড়ে খুন হন মাছচাষি মাসুদ রানা (৪৫)।  তবে প্রাণে বেঁচে যান তার সহযোগী লিটন আলী (৩০)।

 মাছ চাষি মাসুদ রানা উপজেলার দেওপাড়া ইউনিয়নের চাপাল এলাকার আব্দুল খালেক সরকারের ছেলে। এই ঘটনায় থানায় হত্যা মামলা দায়ের করে নিহতের পরিবার। এরপর থেকেই ক্লুলেস এই হত্যাকাণ্ডের রহস্য উন্মোচনে মাঠে নামে গোদাগাড়ী মডেল থানা পুলিশ।

Leave a Reply