নেতার বিরুদ্ধে ফেসবুকে স্ট্যাটাস, যুবলীগ কর্মীকে মারধর

স্টাফ রিপোর্টার, রাজশাহী: নেতার বিরুদ্ধে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেয়ায় রাজশাহীতে এক যুবলীগ কর্মীকে মারধর করা হয়েছে। প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীরর অনুষ্ঠান শেষে বৃহস্পতিবার (১১ নভেম্বর) বিকেলে নগর আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে এই ঘটনা ঘটে।

মারধরের শিকার ওই যুবলীগ কর্মী হলেন-নাসির উদ্দিন ওরফে আলী। তিনি নগরীর তালাইমারী এলাকার বাসিন্দা। তিনি নগর যুবলীগের সভাপতি রমজান আলীর অনুসারী।

তার অভিযোগ, হামলাকারীরা নগর যুবলীগের প্রস্তাবিত কমিটির যুগ্ম সম্পাদক তৌরিদ আল মাসুদ রনির সমর্থক। মারধর করে তার পরনের পাঞ্জাবি ছিঁড়ে ফেলা হয়। বাধ্য করা হয় ফেসবুক থেকে পোস্ট মুছে ফেলতে।

জানা গেছে, যুবলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী ৪৯তম সামনে রেখে ফেস্টুন প্রকাশ করেন নগর যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মুকুল শেখ। আলাদা ফেস্টুন ছাপেন যুবলীগ নেতা পলাশ চৌধুরীও।

মুকুল শেখ তার ফেস্টুনে বঙ্গবন্ধু, প্রধানমন্ত্রী, যুবলীগ প্রতিষ্ঠাতা, জাতীয় চার নেতার অন্যতম শহীদ এএইচএম কামারুজ্জামান, বর্তমান সভাপতি-সম্পাদক, নগর আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনের ছবির পাশাপাশি যুবলীগ নেতা তৌরিদ আল মাসুদ রনির ছবি প্রকাশ করেন।

পলাশ চৌধুরী তার ফেস্টুনে নগর যুবলীগ সভাপতি- সম্পাদকের ছবি বাদ দেন। সেখানে সভাপতি ও সম্পাদক পদপ্রার্থী মুকুল শেখ এবং তৌরিদ আল মাসুদ রনির ছবি স্থান পায়। 

এনিয়ে ক্ষুদ্ধ প্রতিক্রিয়া দেখান যুবলীগ কর্মী আলী। তিনি ফেসবুক স্ট্যাটাসে লিখেন-তৌরিদ আল মাসুদ রনি যুবলীগের কোনো পদের নেতা না। এমনকি তিনি মুকুল শেখের চেয়েও বড় নেতা না। কেনো মুকুল শেখ ফেস্টুনে রনির ছবি দিলেন সেই প্রশ্ন তোলেন আলী।

একই সাথে পলাশ চৌধুরী তার ফেস্টুনে নগর যুবলীগের বর্তমান নেতাদের বাদ দিয়ে পদপ্রত্যাশীদের ছবি দিয়েছেন। তারা নগর যুবলীগকে অপমান করেছেন। এর জবাবও চান যুবলীগ কর্মী আলী। এরপর থেকেই ফুসছিলেন যুবলীগ নেতা তৌরিদ আল মাসুদ রনির সমর্থকরা।

এর আগে বিকেলে সাড়ে ৪টার দিকে নগর আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের সামনে নগর যুবলীগ সভাপতি রমজান আলী ও যুবলীগ নেতা তৌরিদ আল মাসুদ রনির সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, যুবলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে অংশ নিতে দলীয় কার্যালয়ের সামনে পৌঁছান সিটি মেয়র ও নগর আওয়ামী লীগ সভাপতি এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। তাকে অভ্যর্থনা জানাতে গিয়ে হুড়োহুড়িতে পড়ে মেজাজ হারান যুবলীগ নেতা তৌরিদ আল মাসুদ রনি।

এসময় তার সমর্থকরা যুবলীগ সভাপতি রমজান আলীর সমর্থকদের উপর চড়াও হন। বাকবিতণ্ডার এক পর্যায়ে শুরু হয় ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া।পরে শীর্ষ নেতাদের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি শান্ত হয়। পরে সবপক্ষকে নিয়ে প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন করেন সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন।

সেখানে বক্তব্যদানকালে এই ঘটনায় গড়িতদের খুঁজে বের করে শাস্তির আওতায় আনার ঘোষণা দেন নগর আওয়ামী লীগ সভাপতি। একই সাথে নেতাকর্মীদের শান্ত থাকার আহবান জানান। কিন্তু তিনি বেরিয়ে যাবার পর পরই মারধরের শিকার হন যুবলীগ কর্মী আলী।

এ বিষয়ে যুবলীগ নেতা তৌরিদ আল মাসুদ রনি সাংবাদিকদের বলেন, যে অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটেছে সে বিষয়ে এখনো আমাদের মধ্যে আলোচনা চলছে। তবে যে বা যারা ঘটনাটি ঘটিয়েছেন তারা যুবলীগের কেউ নন।

তবে ভুল বোঝাবুঝি থেকে এই ঘটনার সূত্রপাত বলে জানিয়েছেন নগর যুবলীগের সভাপতি রমজান আলী। এনিয়ে মেয়র একটি তদন্ত কমিটি করতে নির্দেশ দিয়েছেন। তদন্ত করে দোষীদের শাস্তির আওতায় আনা হবে।

Leave a Reply