স্বামীর পরিণতিই কি বরণ করবেন নার্গিস?

স্টাফ রিপোর্টার, রাজশাহী: রাজশাহী পাটকলের স্থায়ী শ্রমিক ছিলেন আবু সিদ্দিক। ২০১৭ সালের মে মাসে তিনি অবসরে যান। ঘুরে ঘুরেও পাননি গ্র্যাচুইটি-প্রভিডেন্ট ফাণ্ডের টাকা। অর্থাভাবে নিজের চিকিৎসাও করাতে পারেননি।

রোগে ভুগে শেষে ২০২০ সালের জুলাইয়ে মারাই যান আবু সিদ্দিক। শ্রমে-ঘামে আয় করা টাকা পাওয়া তো দূরের কথা, মৃত্যুর আগে পাটকলে নিজের পাওনা টাকার পরিমাণটাও জেনে যেতে পারেননি এই হতভাগ্য।

প্রয়াত আবু সিদ্দিকের নমিনী স্ত্রী নার্গিস বেগম। জটিল কঠিন রোগে তিনিও শয্যাশয়ী। টাকা না পাওয়ায় আক্ষেপ রয়েছে তারও। তার শঙ্কা-হয়তো জীবদ্দশায় স্বামীর পাওনা টাকা তিনি পাবেননা। তার প্রশ্ন টাকার অভাবে তাকেও কি বিনা চিকিৎসায় মরতে হবে?

পাটকল সংলগ্ন রাজশাহীর কাঠাখালি পৌর এলাকার সমসাদিপুরে প্রয়াত আবু সিদ্দিকের বাড়ি। দুই সপ্তা রাজশাহী ডায়াবেটিস এসোসিয়েশন হাসপাতালে চিকিৎসা শেষে বাড়ি ফিরেছেন নার্গি বেগম। হাসপাতাল থেকে ফিরেছেন ঠিকই কিন্তু বাড়িতে পড়ে রয়েছেন অষুধ-পথ্যবিহীন।

বিছানা থেকে উঠে দাঁড়ানোর শক্তি নেই নার্গিস বেগমের। বিছানাই শুয়েই তিনি কথা বলেন এই প্রতিবেদকের সঙ্গে। স্বামীর পাওনা টাকা দ্রুত পরিশোধে করুণ আর্তিও জানান।

রাজশাহী পাটকলের ২ নম্বর ফটক। সবগুলো ফটকেই কড়া পাহারা বসিয়েছে পাটকল কর্তৃপক্ষ।

তিনি জানান, বিনা চিকিৎসায় তিনি বিছানায় পড়ে গেছেন। দুই ছেলে দিনমজুর। কোনো রকমে দু বেলা ভাতের জোগাড় করছে ছেলেরা। অসুস্থ হয়ে ১২ দিন হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন। এনজিও থেকে ৫০ হাজার টাকা ঋণ নিয়ে ৫০ হাজার টাকা খরচ করেছে ছেলেনা। এখন তাদের আর চিকিৎসা চালানোর সামর্থ নেই। সবমিলিয়ে তিনি খুব কষ্টে আছেন। এই কষ্ট মিলের লোকজন কিছুতেই বুঝতে চাইছেনা। স্বামী বেঁচে থাকলে হয়তো তার এমন কষ্ট হতোনা।

নার্গিস বেগমের ছেলে শাহিন আহম্মেদ জানান, প্রায় এক দশক ধরে তার মা ডায়াবেটিসে আক্রান্ত। কিন্তু অর্থাভাবে চিকিৎসা করানো যাচ্ছেনা। এখন তিনি চোখে দেখতে পাননা। কিডনিতেও সমস্যা ধরা পড়েছে। আরো নানান শারীরিক জটিলতাও রয়েছে মায়ের।

দুই ভাই ধার-দেনা করে চিকিৎসা চালাচ্ছেন। কিন্তু এই অবস্থায় আর কিছুতেই কুলিয়ে উঠতে পারছেননা। জুটমিলে পাওনা চাইতে গেলে তারা টাকা দিচ্ছেনা।  ক‘ টাকা পাওনা রয়েছে সেটিও জানাচ্ছেনা। কেবল বিজেএমসি এবং অর্থ মন্ত্রণালয়ের দোহাই দিয়ে ঘুরিয়েই যাচ্ছে।

কাটাখালির সমসাদিপুর এলাকার বাসিন্দা নাজমা বেগমও। তার জীবনের আখ্যান মিলে যায় নার্গিস বেগমের সঙ্গে। নাজমা বেগমের স্বামী প্রয়াত শের মোহাম্মদ রাজশাহী পাটকলের শ্রমিক ছিলেন। শের মোহাম্মদ অবসরে যান ২০১৫ সালের ১৫ জানুয়ারি। তিনি মারা গেছেন ২০২০ সালের ২৯ মে। অর্থাভাবে তিনিও একরকম বিনা চিকিৎসায় মারা যান। চিকিৎসার অভাবে তার স্ত্রী নাজমা বেগম দৃষ্টিশক্তি হারিয়েছেন এক চোখে।

নাজমা বেগমও শোনান নিজের সীমাহীন দুর্ভোগের কথা। তিনিও অপেক্ষায় আছেন স্বামীর পাওনা টাকার। তিনি বলেন, মিলের ভিতরে তারা ঢুকতেই পারেননা। ম্যানেজারের সাথেও কথা বলার সুযোগ নেই। ক’টাকা পাবেন সেটিও জানতে পারেননি। একমাত্র ছেলে খুব কষ্ট করে সংসারের হাল ধরেছে। করোনার ভেতরে ছেলের চাকরি ছিলনা। খেয়ে-না খেয়ে  দিন গেছে। কেউ খোঁজও নেয়নি।

প্রায়ত শের মোহাম্মদের মেয়ে শিল্পী আক্তার জানান, তার তিন বোন ও এক ভাই। পাটকলে সামান্য বেতনে চাকরি করে বাবা তাদের পড়ালেখা করিয়েছেন। চাকরির আয় থেকেই বাড়ি করার জন্য দুই কাঠা জমি কিনেছেন। কিন্তু তার সেই আশা পুরুণ হয়নি।

শিল্পী জানান, অবসরে গিয়ে তার বাবা অসুস্থ হয়ে পড়েন। অর্থাভাবে ভালোমত চিকিৎসাও করানো যায়নি। এক রকম বিনা চিকিৎসায় তিনি মারা যান। অবসরকালীন টাকা পেলে তার চিকিৎসা করানো যেতো। এখন মা অসুস্থ। মায়েরও চিকিৎসা করাতে পারছেননা। কিন্তু দেখার কেউ নেই।

রাজশাহী পাটকলের সাহায্যকারী ছিলেন সাইফুল ইসলাম। ২০২০ সালের ১ নভেম্বর রাতে প্রতিদিনেরমত শেষে শেষে মিল থেকে বাড়ি ফেরেন। অসুস্থ হয়ে ওই রাতেই সাইফুল ইসলাম মারা যান। চার ছেলে মেয়েসহ স্ত্রী আমিনা খাতুনকে ভাসিয়ে যান দু:খের সাগরে।

থাকেন কাটাখালির এমাদপুর নতুনপাড়া এলাকায় শ্বশুরের সংসারে ছেলে-মেয়েদের নিয়ে থাকেন আমিনা খাতুন। কথা হয় এই হতভাগ্যের সাথেও। আমিনা জানান, তার চার ছেলে-মেয়ে। কোলে দুই বছরের শিশু সন্তান। স্বামীর মৃত্যুর পর কিছুই পাননি পাটকল থেকে। সন্তানদের পাওয়া-পরা ও পড়ালেখা সবই থমকে গেছে।

আমিনা খাতুনের শ্বশুর আব্দুল মজিদ পাটকলের মেক্যানিক্যাল বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত শ্রমিক ছিলেন। তিনি জানান, নিজের অবসরের পর ছেলে পাটকলে যোগ দেয়। প্রায় আট বছর চাকরি হয়েছিল। সাহায্যকারী পদে কর্মরত অবস্থায় ছেলে মারা যায়। পাটকলে তার পাওনা ৬ লাখ ৬৮ হাজার টাকা। কবে সেই টাকা পাওয়া যাবে তার ঠিকঠিকানা নেই।

স্বামী শের মোহাম্মদের আইডি কার্ড হাতে নাজমা বেগম। চিকিৎসার অভাবে এক চোখের দৃষ্টিশক্তি হারিয়েছেন তিনি।

কেবল নার্গিস, নাজমা কিংবা আমিনা নন, এমন ৯৯ জন মৃত পাটকল শ্রমিকের পরিবারে নেমে এসেছে চরম দুর্ভোগ। এর বাইরেও বদলিসহ নাম জটিলতায় আরও প্রায় ৫০০ শ্রমিকের জীবনের চাকা থমকে গেছে। অনেকেই দুর্বিষহ জীবন কাটাচ্ছেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন রাজশাহী পাটকল শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি জিল্লুর রহমান। তিনি বলেন, এই পাটকলে ১ হাজার ২০৭ জন শ্রমিক কাজ করতেন।  এর মধ্যে ৫০০ জন অবসরপ্রাপ্ত এবং মারা গেছেন। পাটকল বন্ধের সময় কর্মরত ছিলেন ৭১১ জন শ্রমিক। বদলি শ্রমিক ছিলেন আরও ১ হাজার ৫০ জন। স্থায়ী শ্রমিকদের প্রায় সবাই নিজেদের পাওয়া বুঝে পেয়েছেন।

কিন্তু মৃত ৯৯ জন শ্রমিকের পরিবারকে পাওয়া বুঝিয়ে দেয়নি কর্তৃপক্ষ। নামের ভুল থাকা ১১ জন এবং বদলি ৩৩৩ জন শ্রমিকও তাদের পাওনা টাকা পাননি। একই দশা পাটকলের ৭০ জন তাদের কে কত বছর চাকরি করেছেন, কত টাকা গ্রাচ্যুইটি হবে, কত টাকা প্রভিডেন্ট ফান্ড থেকে পাবেন, কত টাকা মজুরি কমিশন থেকে পাবেন- এসবের কোনো হিসাব দেয়া হয়নি। পারিবারিক সঞ্চয়পত্র খুলে দেয়ার থাকলেও সেটি দেয়নি কর্তৃপ্ক্ষ। কারো কারো কাছে বাড়তি অর্থ আদায় করেছে।

এই শ্রমিক নেতা বলেন,  বিভিন্ন সময় তারা পাটকল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে বসেছেন। তারা বরাবরই জানিয়েছে, অল্প দিনের ভেতরে পাওনা পরিশোধ করা হবে। মিল বন্ধের আগে সরকার কথা দিয়েছিল- তিন মাসের মধ্যে পাওনা পরিশোধের । এছাড়া পিপিপির আওতায় আবারো মিল চালু করে তাদের কাজে ফেরানো হবে। কিন্তু ২০ মাসেও প্রতিশ্রুতির বাস্তবায়ন হয়নি।

সরাসরি এনিয়ে কথা বলতে রাজি হননি রাজশাহী পাটকলের উপ-মহাব্যবস্থাপক ও প্রকল্প প্রধান শরিফুল কবির। দপ্তরে গেলেও সাংবাদিক পরিচয় পেয়ে সাক্ষাতে রাজি হননি। তবে মোবাইলে শরিফুল কবির বলেন, আমের প্রায় ৯৫ শতাংশ শ্রমিকের পাওনা পরিশোধ করা হয়েছে। যাদের পাওনা পরিশোধ হয়নি, আশা করা যায় তারাও তাড়াতাড়ি পেয়ে যাবেন।

জানা গেছে, ১৯৬৯ সালে রাজশাহী নগরীর উপকণ্ঠ শ্যামপুরে ৪৯ দশমিক ০২ একর জয়গাজুড়ে গড়ে উঠে রাজশাহী পাটকল। স্বাধীনতার পর এটি জাতীয়করণ হয়। বাংলাদেশ পাটকল করপোরেশনের (বিজেএমসি) আওতায় পরিচালিত হচ্ছিল এই কারখানাটি। ২৬০ লুমের এই পাটকলের উৎপাদন ক্ষমতা ২১ দশমিক ৭৮ মেট্রিক টন। এখানে মূলত: চিকন ও মোটা বস্তা তৈরী হতো। 

২০২০ সালের ২ জুলাই রাত ১০টার দিকে এই পাটকল বন্ধ হয়ে যায়। এতে বেকার হয়ে পড়েন কর্মরত হাজারো শ্রমিক। গোল্ডেন হ্যাণ্ডসেকে নিয়মিত কর্মীদের অধিকাংশই তাদের পাওনা পান। কিন্তু বাকিদের ভাগ্য ঝুলে যায়।

Leave a Reply