রাজশাহী মহানগরীতে আদালতের নির্দেশ অমান্য করে দোকাঘর দখলের চেষ্টায় মা-মেয়েকে  পিটিয়ে আহত করেছে দখলদার দূর্বৃত্তরা।

স্টাফ রিপোর্টার, রাজশাহী: রাজশাহী মহানগরীতে আদালতের নির্দেশ অমান্য করে দোকাঘর দখলের চেষ্টায় মা-মেয়েকে  পিটিয়ে আহত করেছে দখলদার দূর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় আজ (সোমবার) বোয়ালিয়া মডেল থানায় বাদী হয়ে অভিযোগ দায়ের করেছেন নির্যাতনের শিকার রহিমা খাতুনের ছেলে মো. জামাল হোসেন।

সোমবার (৭ ফেব্রুয়ারি) বেলা সাড়ে ১১টায় নগরীর নিউ মার্কেট ইসলামী ব্যংক শাখার পশ্চিমে জিসান শোরুমের পাশে এ ঘটনা ঘটে।

আহতরা হলেন- মোসা. রহিমা খাতুন (৬৫) ও মোসা. রুমা খাতুন (৪৬)। তারা সম্পর্কে মা ও মেয়ে।  

থানার অভিযোগের সূত্র ধরে জামাল বলেন, নগরীর নিউমার্কেট এলাকায় জিসান মোবাইল শোরুমের পাশের এজমাইলি সম্পত্তির ভাগ-বাটোয়ারাকে কেন্দ্র করে শরিকদের মধ্যে জেলা রাজশাহী যুগ্ম জেলা জর্জ আদালত-১ এর ৮৮/২০১৯ অ.প্র. ধারায় (বাটোয়ারা আইন) একটি মামলা বিচারাধীন রয়েছে। কিন্তু আদালতে মামলা চলমান অবস্থাতেই অংশিদার আলমগীর হোসেন (৫০) ও তার দুই ছেলে মো. রায়হানুল ইসলাম ইমন (৩২) এবং তৌহিদুল ইসলাম হৃদয় (২৬) দোকানঘরটি গোপনে রুবেল নামের এক ব্যক্তিকে ভাড়া প্রদান করেন।

আজ (সোমবার) সকালে ১১টার দিকে আলমগীর তার দুই ছেলে ও তাদের ভাড়াটিয়া রুবেল ও সুজনসহ তাদের প্রায় ১৫ থেকে ২০ জন অজ্ঞাত ব্যক্তিদের ডেকে দোকানের তালা ভেঙ্গে তা জোরপূর্বক দখলের চেষ্টা করেন। এ ঘটনার প্রতিবাদ করতে গিয়ে আমার মা রহিমা খাতুন, বড় ভাই কামাল হোসেন ও বোন রুমা খাতুনকে লাঠি দিয়ে এলোপাথারি পিটিয়ে গুরুতর যখম করে দুবৃর্ত্তরা।

এ ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশে খবর দেয়। পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছালে তারা ঘটনাস্থল ত্যাগ করে পালিয়ে যায়। পরে ঘটনাস্থল থেকে গুরুতর আহত মা ও বোনকে উদ্ধার করে রামেক হাসপাতালে নেয়া হয়। তারা বর্তমানে রামেক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এঘটনায়  হামলাকারী দখলদারদের বিরুদ্ধে থানায় একটি অভিযোগও করা হয়েছে।

এদিকে হামলা বিষয়টি স্বীকার করলেও যবরদখলের বিষয়ে বোয়ালিয়া মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. মাজহারুল ইসলাম বলেন, আদালতের নির্দেশ লঙ্ঘন করে নিউ মার্কেট এলাকায় একটি পরিবারের ওপর মারধরের ঘটনা ঘটেছে। তবে ঘটনাটি শোনার পরপরই সেখানে পুলিশ ফোর্স প্রেরণ করা হয়েছে।

তিনি বলেন, শুনেছি পরস্পর ভাই-ভাইদের মধ্যে জমি-জমার নিয়ে দীর্ঘদিন থেকেই এ বিরোধ চলছে। আজ ওই বিষয়েই একটু হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে। বিষয়টি নিষ্পত্তির জন্য উভয় পক্ষকে থানায় ডাকা হয়েছে। তারা নিজেদের মধ্যে বিষয়টি মীমাংসা না করলে আইনি প্রক্রিয়ায় প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।   

Leave a Reply