টিকা না নিয়েও সার্টিফিকেট পেলেন তারা

পাবনা: অনলাইনে রেজিস্ট্রেশন করেও করোনা ভ্যাকসিন নেননি। তবুও করোনা টিকা নেয়ার সনদ পেয়েছেন পাবনার সুজানগর উপজেলার আব্দুর রাজ্জাক ও মোছা. হাসিনা খাতুন। 

বৃহস্পতিবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) তারা রেজিস্ট্রেশন কার্ড প্রিন্ট করেন। এতে দেখা যায়, তাদের ভ্যাকসিন নেওয়া হয়ে গেছে। আছে ভ্যাকসিন নেওয়ার তারিখও। অনেকটা অবাক হয়ে যান উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে। তা দেখে বিভ্রান্তির মধ্যে পড়েন দায়িত্বরত কর্মকর্তারা।

ভ্যাকসিন না নিয়েও সার্টিফিকেট পাওয়া আব্দুর রাজ্জাক সুজানগর পৌরসভার ৩ নং ওয়ার্ডের ভবানীপুর (কাঁচারীপাড়া) এলাকার মৃত বেলায়েত আলী প্রামাণিকের ছেলে এবং অপরজন হলেন আব্দুর রাজ্জাকের স্ত্রী মোছা. হাসিনা খাতুন।

কোভিড সার্টিফিকেটে আব্দুর রাজ্জাকের প্রথম ডোজ নেওয়ার তারিখ ০৯-০৮-২০২১ এবং দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার তারিখ ০৯-১০-২০২১ উল্লেখ করা হয়েছে। মোছা. হাসিনা খাতুনেরও প্রথম ডোজ নেওয়ার তারিখ ০৯-০৮-২০২১ এবং দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার তারিখ ০৯-১০-২০২১ উল্লেখ করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভ্যাকসিন দিতে আসেন আব্দুর রাজ্জাক ও হাসিনা খাতুন। আব্দুর রাজ্জাক বলেন, গত বছরের আগস্ট মাসের ৭ তারিখ ভ্যাকসিন নেওয়ার জন্য আমি এবং আমার স্ত্রী রেজিস্ট্রেশন অনলাইনে রেজিস্ট্রেশন করি। মোবাইলেও ম্যাসেজ আসে। কিন্তু পারিবারিক নানা ব্যস্ততার কারণে আমাদের ভ্যাকসিন নেওয়া হয়নি।

বৃহস্পতিবার সকালে ভ্যাকসিন নেওয়ার জন্য রেজিস্ট্রেশন কার্ড প্রিন্ট করতে গিয়ে দেখি আমাদের ভ্যাকসিন দেওয়া হয়ে গেছে। পরে কার্ডের নম্বর নিয়ে অনলাইনে গিয়ে দেখি, ভ্যাকসিন নেওয়ার সার্টিফিকেট এসেছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আবু তোহা মো. শাকিল  জানান, এ ধরনের ঘটনা একাধিক ব্যক্তির ক্ষেত্রেই ঘটেছে বলে আমি জানতে পেরেছি। এটি ওয়েবসাইটের সমস্যা। তবে এ ধরনের ঘটনা যাদের ক্ষেত্রে ঘটেছে তাদের রেজিস্ট্রেশন কার্ডে হাতে লিখে সংশোধন করে একই রেজিস্ট্রেশনের মাধ্যমে টিকা দেওয়া হবে।

পাবনার সিভিল সার্জন ডা. মনিসর চৌধুরী বলেন, স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে জানালে সমাধানের ব্যবস্থা করা হবে। তারা সংশোধন করে টিকা নিতে পারবেন। তবে এ ধরনের ঘটনা ওয়েবসাইট জটিলতায় ঘটতে পারে।

Leave a Reply