যুবতির বিয়ে ভেঙে পাত্র হতে ইউপি সদস্যের কাণ্ড

স্টাফ রিপোর্টার, রাজশাহী: দীর্ঘদিন ধরে এক যুবতিকে উত্যক্ত করে আসছিলেন রাজশাহীর গোদাগাড়ীর ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য প্রদীপ এক্কা (৪২)। বিয়ের জন্য পরিবারকে নানানভাবে চাপও দিচ্ছিলেন। কিন্তু সেই বিয়েতে রাজি হয়নি কিশোরীর পরিবার।

উল্টো অন্যত্র বিয়ে ঠিক হয়। পাঁচদিন পরেই বিয়ে। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে পাত্রকে ফাঁসাতে মাদক নাটক সাজিয়েছিলেন ইউপি সদস্য। কিন্তু পুলিশের তৎপরতায় সেই ফাঁদে নিজেই আটকা পড়েছেন এই ইউপি সদস্য।

অভিযুক্ত প্রদীপ এক্কা গোদাগাড়ীর দেওপাড়া ইউনিয়নের ৬ নম্বর ওয়ার্ড সদস্য। বুধবার (২ মার্চ) দিবাগত রাতে তার সহযোগী মিল্টন (২১) গ্রেফতার হয়েছেন পুলিশের হাতে। মিলনের রেখে আসা স্থান থেকে ৯ বোতল ফেনসিডিল এবং ১০০ গ্রাম হেরোইন পেয়েছে পুলিশ।

গ্রেফতার মিল্টন ইউপি সদস্য প্রদীপ এক্কার প্রতিবেশী। পুলিশের জেরার মুখে ইউপি সদস্যের জারিজুরি ফাঁস করে দেন মিল্টন। এনিয়ে তাদের দুজনের নামে রাতেই মামলা হয়েছে গোদাগাড়ী মডেল থানায়। ঘটনার পর থেকেই পলাতক ওই ইউপি সদস্য।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন রাজশাহী জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) সনাতন চক্রবর্তী। তিনি বলেন, গোদাগাড়ীর গোগ্রাম ইউনিয়নের পূজাতলা এলাকার বাসিন্দা ওই যুবতিকে বিয়ের প্রস্তাব দেন প্রদীপ এক্কা। কিন্তু তাতে রাজি হয়নি যুবতির পরিবার।

শেষে একই ইউনিয়নের চৌদুয়ার এলাকায় এক যুবকের সাথে তার বিয়ে ঠিক হয়। বিয়ের প্রস্তুতি চলছিল। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে পাত্রকে মাদক দিয়ে ফাঁসিয়ে নিজেই বিয়ের পাত্র হবার পরিকল্পনা করেন প্রদীপ এক্কা।

তিনি বলেন, পরিকল্পনা মাফিক সহযোগী মাধ্যমে মাদক সংগ্রহ করেন প্রতীপ এক্কা। এরপর সহযোগীকে দিয়ে যুবতির হবু বরের বাড়িতে সেই মাদক রেখে আসেন। পরে জেলা গোয়েন্দা শাখাকে (ডিবি) সেই মাদকের খবর দেন।

খবর পেয়ে জেলা গোয়েন্দা পুলিশের পরিদর্শক রুহুল আমিন সেখানে অভিযান চালান। পুলিশ প্রথমে মাদক খুঁজে পাচ্ছিলনা। পরে ইউপি সদস্যের সহযোগী মিল্টন এসে স্থান দেখিয়ে দেন। সেখান থেকে ৯ বোতল ফেনসিডিল এবং ১০০ গ্রাম হেরোইন পাওয়া যায়।

 এই ঘটনায় পুলিশ হেফাজতে নেয় হবু বরেকে। তাকে জিজ্ঞাবাদে সন্দেহ হয় পরিদর্শক রুহুল আমিনের। এরপর তথ্য প্রদাণকারী মিল্টনকে হেফাজতে নেয়া হয়। কেঁচো খুঁড়তেই বেরিয়ে আসে সাপ। পুলিশের বুদ্ধিমত্তায় দুটি পরিবার বেঁচে গেলো।

জেলা ডিবির পরিদর্শক রুহুল আমিন বলেন, হবু বরকে মাদক ব্যবসায় সংশ্লিষ্ট মনে হচ্ছিলনা। এরপর জেলা পুলিশ সুপারের নির্দেশনায় হেফাজতে নেয় হয় তথ্য প্রদাণকারী মিণ্টনকে। জিজ্ঞাসাবাদে তিনিই ইউপি সদস্য প্রদীপ এক্কার পরিকল্পনা ফাঁস করেন।

তখনই ইউপি সদস্য প্রদীপ এক্কাকে ধরতে অভিযান চালানো হয়। কিন্তু টের পেয়ে আত্মগোপনে চলে যান তিনি। তাকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

এবিষয়ে মোবাইল ফোন বন্ধ থাকায় ইউপি সদস্য প্রদীপ এক্কার মন্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে দেওপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বেলাল উদ্দিন সোহেল জানান, ওই কিশোরীর ভাই তাকে জানিয়েছিলেন ইউপি সদস্য প্রদীপ এক্কা তার বোনকে উত্যক্ত করছেন। এর প্রেক্ষিতে তিনি থানায় অথবা পরিষদে লিখিত অভিযোগ দিতে বলেন। কিন্তু তাতে রাজি হয়নি কিশোরীর পরিবার।

চেয়ারম্যান বলেন, বিষয়টি নিয়ে তিনি সদস্য প্রদীপ এক্কার সাথেও কথা বলেন। তিনি দাবি করেন, ওই যুবতির সাথে তার প্রেমের সম্পর্ক। এর বাইরে বেশি কিছু জানেননা বলে জানান চেয়ারম্যান।

Leave a Reply