মারাই গেলেন শিক্ষার্থীকে বাঁচাতে গিয়ে আহত শিক্ষক

স্টাফ রিপোর্টার: আর ফেরা হলোনা বিদ্যালয় আঙিনায়। মারাই গেলেন নওগাঁর নিয়ামতপুরের স্কুলশিক্ষক আব্দুল মজিদ। শুক্রবার সন্ধ্যায় রাজশাহী শহরের আমানা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন মজিদ।

শিক্ষার্থীকে বাঁচাতে গিয়ে বুধবার বিকেল বিকেলে সড়ক দুর্ঘটনায় আহত হন তিনি। এরপর এই তিনদিন তিনি রাজশাহীতে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

৫০ বছর বয়সী আব্দুল মজিদ নিয়ামতপুর উপজেলার সদর ইউনিয়নের বালিচাঁদ গ্রামের রমজান আলী মোল্লার ছেলে। তিনি কুমারগাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক।

কুমারগাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সাইদুর রহমান মৃত্যুর খবরটি নিশ্চিত করেছেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বুধবার বিকেল ৪টার দিকে বিদ্যালয়ের ছুটি হলে মোটরসাইকেলযোগে বাড়ি ফিরছিলেন তিন শিক্ষক আব্দুল মজিদ, রায়হান ও মজিবুর রহমান। পরে নুরপুর মোড়ে পৌঁছালে সেখানে রাস্তা পার হচ্ছিল পতকৈল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

এই সময় এক শিক্ষার্থী মোটরসাইকেলের সামনে চলে এলে তাকে বাঁচাতে জোরে ব্রেক চাপার ফলে রাস্তার ওপর পড়ে যান ওই তিন শিক্ষক। এ ঘটনায় অন্য দুই শিক্ষক সামান্য আহত হলেও আব্দুল মজিদের পা ভেঙে যায় এবং মাথায় গুরুতর আঘাত পান। তবে অক্ষত থাকে ওই শিশু শিক্ষার্থী।

স্থানীয়রা আহত শিক্ষকদের নিয়ামতপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করলে মজিদের অবস্থার অবনতি হয়। পরে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। ওই রাতেই উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজশাহীর বেসরকারি আমানা হাসপাতালে তাকে স্থানান্তর করেন স্বজনরা। চিকিৎসাধীন অবস্থায় সেখানে মারা যান তিনি।

নিয়ামতপুর থানার ওসি হুমায়ূন কবির বলেন, সড়ক দুর্ঘটনায় আহত স্কুলশিক্ষক আব্দুল মজিদ মারা গেছেন। বিষয়টি খুবই দুঃখজনক। শিশু শিক্ষার্থীদের রক্ষা করতে গিয়ে গুরুতর আহত হন তিনি। আজ মারা গেলেন চিৎিসাধীন অবস্থায়। তবে এ ঘটনায় থানায় কোনো অভিযোগ নেই।

Leave a Reply