নিজে সচেতন হলে চলবে না, অন্যকেও সচেতন করতে হবে

স্টাফ রিপোর্টার, রাজশাহী: রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার জি এস এম জাফরউল্লাহ্ বলেছেন, ভোক্তা অধিকার আইন বিষয়ে আমরা যারা কম জানতাম, ভোক্তা অধিকার দিবসে তারা সচেতন হয়েছি এখন শুধু নিজে সচেতন হলে চলবে না, অন্যদেরও সচেতন করতে হবে। দেশে আইনের অভাব নেই, কিন্তু এটি তৃণমূল পর্যায়ে জানিয়ে দিতে হবে।

মঙ্গলবার (১৫ মার্চ) সকালে বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে বিশ^ ভোক্তা অধিকার দিবস উপলক্ষ্যে অনুষ্ঠিত আলোচনাসভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন।

বিভাগীয় কমিশনার বলেন, মজুতদারি, কালোবাজারির ব্যাপারে ৫০ বছর আগে বঙ্গবন্ধু যে কথা বলেছেন আজকে প্রধানমন্ত্রীও সে কথাই বলছেন। অপরাধ শুধু বিক্রেতারই আছে এমনটা নয়, ক্রেতারও সমস্যা আছে।

আমাদের মূল্যবোধ এমন পর্যায়ে পৌঁছে গেছে যে, কাকে দোষারোপ করব। অনেক সময় বিক্রেতারা নীতি-নৈতিকতা বিসর্জন দেয় আর ক্রেতারাও মনে করে নীতি-নৈতিকতা শুধুু বিক্রেতার বিষয়।

জি এস এম জাফরউল্লাহ্ বলেন, আমরা বিভিন্ন সভা-সেমিনারে সবসময় আইনের আধুনিকায়নের বিষয়ে কথা বলি, কিন্তু আমাদের বিশিষ্টজনরা মনে করেন আমাদের যে আইন আছে তা যদি সঠিকভাবে প্রয়োগ করা যায় তাহলেই আমাদের সমস্যাগুলো সমাধান করা সম্ভব। তিনি বলেন, সত্যিকার অর্থে জাতিগতভাবে আমাদের মূল্যবোধের অভাব রয়েছে। আমাদের মূল্যবোধকে এখনই ঠিক করতে হবে।

সাধারণ মানুষের যেন কোনো কষ্টকর পরিস্থিতিতে পড়তে না হয় তাই আসন্ন রমজানে বাজার নিয়ন্ত্রণের জন্য দুই ধাপে সারাদেশে ১ কোটি পরিবারকে স্বল্প মূল্যে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি টিসিবির মাধ্যমে বিক্রয় করা হবে বলে জানান বিভাগীয় কমিশনার।

সভাপতির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক আব্দুল জলিল জানান, আসন্ন রমজান উপলক্ষ্যে রাজশাহীতে ২ লাখ পরিবারকে বিশেষ পারিবারিক কার্ড দেওয়া হবে যা দিয়ে তারা তেল, ডাল, চিনি ও ছোলা এই চারটি নিত্যপণ্য স্বল্পমূল্যে ক্রয় করতে পারবে। তাদেরকে ট্রাকের পেছনে লাইন দিতে হবে না, বরং একটি বিক্রয় কেন্দ্র থেকে তারা কেনাটাকা করতে পারবে।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন রাজশাহী মহানগর পুলিশ কমিশনার আবু কালাম সিদ্দিক। তিনি বলেন, আসন্ন রমজান মাসকে সামনে রেখে কৃত্রিম সংকট তৈরীর অপচেষ্টা চলছে। এটি বন্ধ করতে সকল ভোক্তা-সাধারণকে কেনাকাটায় মিতব্যয়ী হতে হবে।

বিশেষ অতিথি হিসেবে আরও বক্তব্য রাখেন- পুলিশের রাজশাহী রেঞ্জ দপ্তরের পুলিশ সুপার (মিডিয়া এন্ড ক্রাইম এনালাইসিস) আব্দুস সালাম। তিনি খাদ্যপণ্যে রাসায়নিক দ্যব্যের মিশ্রণ রোধে অভিযানের পাশাপাশি নিয়মিত মামলা দায়েরের পরামর্শ দেন।

বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন রাজশাহী চেম্বার্স অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি মাসুদুর রহমান রিংকু। তিনি সামাজিক মূল্যবোধের অবক্ষয় রোধ ও অতি মুনাফা লোভীদের দুষ্টচক্র ভাঙতে পারস্পরিক দোষারোপের সংস্কৃতি থেকে বেরিয়ে এসে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আহবান জানান।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তৃতায় ক্যাবের কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা (ভোক্তা-অভিযোগ) এ কে এম খাদেমুল ইসলাম ব্যাংকের এসএমএস সার্ভিসের অতিরিক্ত চার্জ আদায়ের বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন-জাতীয় ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের রাজশাহী বিভাগীয় কার্যালয়ের উপপরিচালক অপূর্ব অধিকারী। তিনি ভোক্তা-সাধারণকে অনলাইনে বা স্বশরীরে পণ্য বা সেবা ক্রয়ের ক্ষেত্রে অধিক হারে সচেতন হওয়ার অনুরোধ জানান। প্রতারিত হলে ভোক্তা অধিদপ্তরে অভিযোগ দায়েরেরও অনুরোধ জানান তিনি।

অনুষ্ঠানে প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন ও পাওয়ার পয়েন্ট উপস্থাপন করেন জাতীয় ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের রাজশাহী জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মাসুম আলী।

পরে মুক্ত আলোচনায় অংশ নেন বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা, ই-কমার্স প্রতিনিধি, উদ্যোক্তা, ছাত্রসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার প্রতিনিধিরা। সেখানে ই-কমার্সের বিভিন্ন সমস্যা ও ভোক্তাদের অভিযোগ, জনসচেতনতা তৈরী, মিথ্যা বিজ্ঞাপন, ব্যবসায়ীদের ভোক্তাদেরকে পাকা রশিদ প্রদান না করাসহ নানা বিষয় উঠে আসে।

মুক্ত আলোচনায় বিভাগীয় কমিশনার (সার্বিক) জিয়াউল হক ই-কমার্সের লেনদেন ও ক্রেডিট কার্ডের অতিরিক্ত চার্জ কর্তনের বিষয়ে আলোকপাত করেন।

বিভাগীয় ও জেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের রাজশাহী বিভাগীয় কার্যালয় ও কনজুমার্স এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব) এ আলোচনা সভার আয়োজন করে। বিশ^ ভোক্তা-অধিকার দিবসে এবারের প্রতিপাদ্য ‘ডিজিটাল আর্থিক ব্যবস্থায় ন্যায্যতা’।

এর আগে বিভাগীয় কমিশনার বেলুন উড়িয়ে বিশ^ ভোক্তা অধিকার দিবসের শুভ সূচনা করেন।

Leave a Reply