পলাতক আসামিদের সঙ্গে জন্মদিন পালন, কপাল পুড়ল ওসির

প্রিয় দেশ ডেস্ক: পলাতক আসামীদের সঙ্গে থানায় নিজ দপ্তরে কেক কেটে জন্মদিন পালন করেছেন কক্সবাজারের চকরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুহাম্মদ ওসমান গণি।

এই ঘটনায় কপাল পুড়ল ওসির। বৃহস্পতিবার দুপুরে তাকে কর্মস্থল থেকে প্রত্যাহার করে জেলা পুলিশ লাইনসে সংযুক্ত করা হয়েছে।

এই আদেশ দেন কক্সবাজার জেলা পুলিশ সুপার মো. হাসানুজ্জামান। 

আরও পড়ুন: নাপা সিরাপে নয়, দুই শিশুর মৃত্যু বিষে

পুলিশ সুপার স্বাক্ষরিত ওই আদেশে বলা হয়েছে, ওসি মুহাম্মদ ওসমান গণি গত ২ মার্চ সন্ধ্যায় জন্মদিন উপলক্ষে থানার অফিস কক্ষে পলাতক আসামিদের সঙ্গে নিয়ে কেক কেটে জন্মদিন পালন করেন।

 তখন ওসির পাশেই দাঁড়িয়ে ছিলেন গ্রেপ্তারি পরোয়ানাভুক্ত পলাতক আসামি আরহান মাহমুদ রুবেলসহ অন্যরা।

পলাতক আসামিরা ওসির জন্মদিন পালন করায় জনসম্মুখে কক্সবাজার জেলা পুলিশ তথা বাংলাদেশ পুলিশের ভাবমূর্তি চরমভাবে ক্ষুণ্ন হয়েছে। তাই চকরিয়া থানার ওসিকে দায়িত্ব থেকে প্রত্যাহার করে পুলিশ লাইনসে সংযুক্ত করা হয়েছে।

আরও পড়ুন: নাটোরে ২ কনস্টেবলকে পেটালো যুবলীগ

জানা গেছে, ২ মার্চ ওসি ওসমান গণির জন্মদিন ছিল। ওই দিন তিনি নিজ কার্যালয়ে হত্যাচেষ্টা মামলার পলাতক আসামিদের সঙ্গে কেক কেটে জন্মদিন পালন করেন।

জন্মদিন পালনের ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে এ নিয়ে সমালোচনা শুরু হয়। এরপরই তাকে সরিয়ে দেয়া হয়েছে।

আদালত ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ছাত্রলীগের আধিপত্য বিস্তার ও পূর্বশত্রুতার জেরে ২০১৯ সালের ২৯ এপ্রিল রাতে কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সদস্য তারেকুল ইসলাম রাহিতকে কুপিয়ে গুরুতর আহত এবং তার মোটরসাইকেল ভাঙচুর করা হয়।

আরও পড়ুন: সন্তানদের লেখাপড়ার ব্যয় বহনে ব্যর্থ বাবার আত্মহত্যা

এ ঘটনায় তারেকুলের ছোট ভাই তানজীমুল ইসলাম বাদী হয়ে চকরিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের বহিষ্কৃত সাবেক সাধারণ সম্পাদক আরহান মাহমুদ রুবেলকে প্রধান আসামি করে ১০ জনের বিরুদ্ধে চকরিয়া থানায় হত্যাচেষ্টার মামলা করেন।

আদালতে ওই মামলার চূড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল করা হয়। বর্তমানে মামলাটি আদালতে বিচারাধীন।

এ ব্যাপারে চকরিয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো. জুয়েল ইসলাম বলেন, ওসিকে (ওসমান গণি) প্রত্যাহার করে জেলা পুলিশ লাইনসে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

Leave a Reply