বাঘা: রাত নামলেই রাজশাহীর বাঘা উপজেলার পদ্মা থেকে উঠছে বালু ভর্তি ট্রাক। সেই ট্রাকেই পাড় স্লোপিংয়ের নামে চলে যাচ্ছে বালু। কৌশলে বালু দস্যুদের এমন কর্মকাণ্ড চলছে বলে অভিযোগ স্থানীয়দের।

এ বিষয়ে প্রশাসনকে জানিয়েও কোনো প্রতিকার পাচ্ছে না বলে পদ্মার পাড়ে বসবাসকারীদের অভিযোগ।

জানা যায়, উপজেলার মনিগ্রাম ইউনিয়নের মীরগঞ্জ চায়পাড়া ও বাজার ঘাট পদ্মা নদীর বাঁধ নির্মাণ এলাকায় কিছু লোকজন ভেকু নামিয়ে দেদার ভরাট বালু উত্তোলন করে বিক্রি করছেন। এই বালু উত্তোলনের প্রতিবাদ করতে গিয়ে তোপের মুখে পড়তে হয়েছে স্থানীয়দের।

নদীর তীর রক্ষার জন্য ১০টি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ব্লক তৈরির পাশাপাশি নদীর পাড় স্লোপিংয়ের কাজ করছেন। যতটুকু মাটি তোলার দরকার, সেটি না করে কতিপয় প্রভাবশালী অতিরিক্ত প্রতিদিন রাতে শত শত ট্রাক বালু উত্তোলন করে বিক্রি করছেন। ফলে ব্লক দিলেও হুমকিতে থাকবে এই বাঁধ এমন অভিযোগ স্থানীয়দের।

চারঘাটের ইউসুপপুর থেকে বাঘার গোকুলপুর ঘাট পর্যন্ত নদীর তীর রক্ষায় ৭২৪ কোটি টাকায় ১২ কিলোমিটার বাঁধ এবং চকরাজাপুর এলাকায় নদী ড্রেজিং করার জন্য আরও সাড়ে তিন কোটি টাকা একনেকে পাশ হয়ে বরাদ্দ অনুমোদন হয়। এগুলোর কাজ করছেন ১০টি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান।

এ বিষয়ে খন্দকার কন্সস্ট্রাকশনের ম্যানেজার নুরুনবী বলেন, নদীর পাড় থেকে ২৫ মিটার স্লোপ এবং ৩৫ মিটার ডামপিং হবে। ডামপিং থেকে কিছু বালু এনে পাড় বাঁধার কাজ করা হচ্ছে। এই সুযোগে ভরাট বালু কিছু মানুষ ভেকু দিয়ে রাতের আঁধারে উত্তোলন করে বিক্রি করছেন। 

এ বিষয়ে মনিগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম বলেন, শুনেছি কে বা কারা রাতের আঁধারে ভরাট বালু উত্তোলন করছেন।

বাঘা উপজেলা নির্বাহী অফিসার পাপিয়া সুলতানা বলেন, এ বিষয়ে আমাকে কেউ কোনো অভিযোগ করেনি। তারপরও খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Leave a Reply