দেশে গণতন্ত্র চর্চায় আ’লীগ এগিয়ে

স্টাফ রিপোর্টার: নওগাঁয় নজিপুর পৌর মেয়র রেজাউল কবির চৌধুরীকে উদ্দেশ করে চেয়ার ছুঁড়ে মারাসহ তাকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করার অভিযোগ উঠেছে একই পৌরসভার ওয়ার্ড কাউন্সিলর মিজানুর রহমানের বিরুদ্ধে।

সোমবার (৪ এপ্রিল) বেলা ১১টার দিকে নজিপুর পৌর ভবনে এ ঘটনা ঘটে।

পরে পৌরভবনের লোকজন আহত মেয়রকে উদ্ধার করে পত্নীতলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হাসপাতালে ভর্তি করেন।

এ ঘটনায় পৌরসভার কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা নিন্দা ও তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

স্থানীয় বাসিন্দা ও পৌরসভায় কর্মরত কয়েকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, সোমবার বেলা ১১টায় মেয়র রেজাউল কবির চৌধুরী পৌরভবনের নিচতলায় দাপ্তরিক কাজ করছিলেন।

এ সময় ওয়ার্ড কাউন্সিলর মিজানুর রহমান মিতু তার কয়েকটি নথিতে স্বাক্ষর না করার জন্য মেয়রের কাছে কৈফিয়ত চান এবং তাৎক্ষণিক সেসব নথিতে স্বাক্ষর করতে বলেন।

কিন্তু মেয়র রেজাউল কবীর চৌধুরী স্বাক্ষর করতে না চাইলে ওয়ার্ড কাউন্সিলর মিতু মেয়রকে উদ্দেশ করে চেয়ার ছুঁড়ে মারেন এবং শারিরীকভাবে লাঞ্ছিত করেন। পরে পৌর সভার কর্মকতা-কর্মচারীরা মেয়রকে উদ্ধার করে পত্নীতলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করান।

এ বিষয়ে নজিপুর পৌর মেয়র রেজাউল কবীর চৌধুরী বলেন, পৌরসভার অনুমোদন ছাড়াই ওয়ার্ড কাউন্সিলর মিতু নিজে কিছু কাজ করেছে। সেই বিলে আমাকে স্বাক্ষর দিতে বলেন।

নিয়ম বহির্ভূতভাবে কাজের বিলে আমি স্বাক্ষর দিতে না চাইলে তিনি আমার ওপর অতর্কিত হামলা করেন। ঘটনার সুষ্ঠু বিচার দাবি করেন তিনি।

এ বিষয়ে ওয়ার্ড কাউন্সিলর মিজানুর রহমান মিতুর সঙ্গে মোবাইলে ফোনে যোগাযোগ করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি।

তবে পত্নীতলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. লিটন সরকার বলেন, পৌর মেয়রের সঙ্গে ওয়ার্ড কাউন্সিলর ঘটে যাওয়া ঘটনাটি অপ্রত্যাশিত। প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এ ব্যাপারে পত্নীতলা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. শামসুল আলম শাহ জানান, আমি বিষয়টি জানার পর হাসপাতালে গিয়ে মেয়রের সাথে কথা বলেছি। লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Leave a Reply