১৯ নম্বর পেয়ে ভর্তির সুযোগ রাবিতে!

স্টাফ রিপোর্টার, রাবি: ভর্তি পরীক্ষায় মাত্র ১৯ নম্বর পেয়ে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষে স্নাতক প্রথম বর্ষে ভর্তির সুযোগ পেয়েছেন এক শিক্ষার্থী।

সেইসঙ্গে বিশেষ বিবেচনায় খেলোয়াড় কোটায় তিনজন এবং পোষ্য কোটায় দুজনসহ পাঁচ ভর্তিচ্ছুকে ভর্তির সুযোগ দিচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

বৃহস্পতিবার (১০ নভেম্বর) ভর্তি কমিটি সূত্রে ছয় শিক্ষার্থীকে সুপারিশের এই তথ্য জানা গেছে। এর আগে গত রোববার (০৬ নভেম্বর) ভর্তি উপ-কমিটির এক সভায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

সুপারিশপ্রাপ্ত ভর্তিচ্ছুরা হলেন- মো. রিফাত হোসাইন আশিক, মো. আশরাফুল হক, নৌখা নায়েল ত্রিপুরা, অনিক দাস, সুমাইয়া আক্তার বিথি ও আতিকুর রহমান। এর মধ্যে শুধু সুমাইয়া আক্তার বিথি ন্যূনতম পাস নম্বর ৪০ এর বেশি পেয়েছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সুমাইয়া আক্তার বিথি ও আতিকুর রহমান বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হলের কর্মচারীর সন্তান। ভর্তির বিধি অনুযায়ী তারা পোষ্য কোটার অন্তর্ভুক্ত নয়। তবে তাদের পোষ্য কোটার অন্তর্ভুক্ত করে বিশেষ বিবেচনায় ভর্তির সুযোগ দেওয়া হয়েছে।

‘এ’ ইউনিটে ভর্তি পরীক্ষায় বিথির প্রাপ্ত নম্বর ৬০.৬০। আর মেধা তালিকায় তার অবস্থান ২৪৯৭। এছাড়া ‘বি’ ইউনিটে তিনি পেয়েছেন ৪৮.৭৫ নম্বর। এই ইউনিটে তার অবস্থান ১০৪২। অন্যদিকে ‘বি’ ইউনিটে আতিকুর রহমানের প্রাপ্ত নম্বর ৩০।

এছাড়া বাকি চারজনকে ভর্তির জন্য সুপারিশ করেছেন শরীরচর্চা শিক্ষা বিভাগের পরিচালক এম আসাদুজ্জামান। তার আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বিশেষ বিবেচনায় তাদের ভর্তির সুযোগ দেয়। এর মধ্যে ‘বি’ ইউনিটের অনিক দাস পেয়েছেন ২৬.২৫ নম্বর এবং রিফাত হোসাইন আশিকের প্রাপ্ত নম্বর ১৯.৩৫

অন্যদিকে ‘এ’ ইউনিটের নৌখা নায়েল ত্রিপুরা ভর্তি পরীক্ষায় পেয়েছেন ৩৭.৬৫ নম্বর এবং একই ইউনিটের আশরাফুল হক পেয়েছেন ৩৪.২৫ নম্বর। তাদের জন্য কোনো ধরনের কোটা না থাকলেও খেলোয়াড় বিবেচনায় তাদের ভর্তির সুযোগ দেওয়া হয়েছে।

সার্বিক বিষয়ে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি উপ-কমিটির প্রধান ও উপ-উপাচার্য অধ্যাপক সুলতান-উল-ইসলাম বলেন, ভর্তি কমিটির সকলের সম্মতিক্রমে সিদ্ধান্ত হয়েছে। তাই তারা ভর্তির সুযোগ পাবে।

Leave a Reply