পাবনায় ২০ টাকার জন্য প্রাণ গেলো ব্যবসায়ীর

পাবনা: মাত্র ২০ টাকার জন্য পাবনায় এক মাদকসেবীর ছুরিকাঘাতে আব্দুল করিম (৬২) নামে এক ব্যবসায়ী মারা গেছেন। মঙ্গলবার (২২ নভেম্বর) দিবাগত রাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় পাবনা জেনারেল হাসপাতালে তিনি মারা যান।

নিহত আব্দুল করিম পাবনা সদর উপজেলার দোগাছি ইউনিয়নের বলরামপুর সরদার পাড়া মহল্লার মৃত ইমান প্রাংয়ের ছেলে। তিনি হাটের আড়ৎদার ও বাধাই মালের ব্যবসায়ী ছিলেন।

মঙ্গলবার বিকেলে সদর উপজেলার হাজির হাটে মনিরুল ইসলাম (৩৬) নামের এক মাদকসেবীর ছুরিকাঘাতে গুরুতর আহত হন আব্দুল করিম। পরে তাকে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

অভিযুক্ত মনিরুল পাবনা সদর উপজেলার আরিফপুর মধ্যপাড়া মহল্লার সরদার বাদশার ছেলে। তিনি মাদকাসক্ত যুবক বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, পাবনার হাজির হাটে আব্দুল করিমের নিজস্ব ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। তিনি সপ্তাহের শুক্র ও মঙ্গলবারের হাটে পেঁয়াজ-রসুনের আড়ৎদারি করতেন এবং অন্যান্য কাঁচামালের বাধাই ব্যবসা করতেন।

মঙ্গলবার বেলা ৩টার দিকে মনিরুল নেশা করার জন্য আব্দুল করিমের ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানে গিয়ে ২০ টাকা দেওয়ার দাবি করেন। ওই ব্যবসায়ী টাকা দিতে অস্বীকার করেন। এতে হঠাৎ মনিরুল ক্ষিপ্ত হয়ে তার হাতে থাকা ধারাল চাকু দিয়ে ব্যবসায়ী করিমকে এলোপাতাড়ি আঘাত করতে থাকেন।

আব্দুল করিমের চিৎকারে আশেপাশের লোকজন তাকে উদ্ধার করতে আসলেও ওই যুবকের উন্মাদনা চলতেই থাকে। এক পর্যায়ে ব্যবসায়ীরা বাঁশ দিয়ে পিটিয়ে ওই যুবককে থামাতে সক্ষম হন। এ সময় স্থানীয়রা পুলিশকে খবর দেন।

পাবনা সদর থানার এসআই রায়হান জানান, পালিয়ে যাওয়ার সময় হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত চাকুসহ মনিরুলকে গ্রেফতার করা হয়।

তিনি জানান, ব্যবসায়ীর শরীরে ৮টি আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। এদিকে স্থানীয়রা ব্যবসায়ী আব্দুল করিমকে গুরুতর আহতাবস্থায় পাবনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেন। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।

পাবনা সদর থানার ওসি আমিনুল ইসলাম জানান, পুলিশ ওই ব্যবসায়ীর লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্ত শেষে স্বজনদের কাছে মৃতদেহ হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ব্যাপারে থানায় মামলা হয়েছে।

Leave a Reply