দাফনের ১৬ দিন পর করব থেকে উঠে এলো নারীর মরদেহ!

127

নওগাঁ: দাফনের ১৬ দিন পর নারীর মরদেহ উঠে এলো কবরের ওপর উঠে! মঙ্গলবার সকালে চাঞ্চল্যকর এই ঘটনা ঘটেছে নওগাঁর পত্নীতলা উপজেলার শিহাড়া ইউনিয়নের ঘোলাদিঘী গ্রামে। 

কবরের পাশে ওই মহিলার মরদেহ পড়ে থাকতে দেখে গ্রামের মধ্যে হইচই পড়ে যায়। শত শত উৎসুক জনতা মরদেহ এক নজর দেখার জন্য ওই গ্রামের কবরস্থানে ভিড় জমান।

জানা গেছে, ঘোলাদিঘী গ্রামের আবদুল লতিফের স্ত্রী ৫ ছেলে সন্তানের জননী মিলি আরা বেগম (৫২) গত ১ সেপ্টেম্বর নিজ বাড়িতে মৃত্যুবরণ করেন।  পরদিন পারিবারিক কবরস্থানে তার মরদেহ দাফন করা হয়। 

তাকে কবরস্থ করার ১২ দিনের মাথায় গত ১৩ সেপ্টেম্বর সকালে কবরের একটি সুড়ঙ্গ দিয়ে মরদেহের একটি হাত বেরিয়ে থাকতে দেখা যায়। পাশে কাফনের কাপড় পড়েছিল।

বিষয়টি পরিবারের লোকজন স্থানীয় এক মাওলানাকে ডেকে দোয়া কালিমা পড়ে কবর হতে বেরানো হাত ও কাফনের কাপড় পুনরায় কবরের মধ্যে প্রবেশ সুড়ঙ্গটি বন্ধ করে দেয়। 

রহস্যজনকভাবে মঙ্গলবার সকালে গ্রামের লোকজন ওই কবরের পাশে মিলি আরার মরদেহ পড়ে থাকতে দেখতে পান।

 ঘটনা জানাজানি হলে শত শত উৎসুক জনতা এক নজর দেখতে ওই কবরস্থানে ভিড় জমান। জনতার উপস্থিতি বাড়তে থাকায় পরিবারের লোকজন তড়িঘড়ি করে মরদেহ মাটিচাপা দিয়ে ঢেকে দেয়া হয়। 

একই কবর থেকে প্রথমে মরদেহের হাত পরে কাফনের কাপড় এবং শেষে সম্পূর্ণ মরদেহ বেরিয়ে আসার বিষয়টিকে অনেকে আজব বলে মন্তব্য করছেন। 

এ ব্যাপারে পত্নীতলা থানার অফিসার ইনচার্জ পরিমল কুমার চক্রবর্তী বলেন, ঘটনাটি শোনার পর আমি নিজে ফোর্সসহ ঘটনাস্থলে যাই। ধারণা করা হচ্ছে, শেয়াল মাটি খুঁড়ে এভাবে লাশ বের করেছে। এ কথা মৃত মহিলার স্বামী আব্দুল লতিফকে জানানো হয়েছে। 

পরবর্তীতে ধর্মীয় বিধান মতে মরদেহ মাটি দেয়া হয়। এলাকার কিছু লোকজন বিষয়টিতে রংচং মাখিয়ে বিভিন্ন কল্পকাহিনী তৈরি করছে।

আপনার মন্তব্য