চোরের ঘুষিতে ৩ দাঁত পড়ে গেলো মাদ্রাসা শিক্ষকের

17

দেশজুড়ে ডেস্ক: চোরের এক ঘুষিতে ৩টি দাঁত পড়ে গেলো বরগুনার পাথরঘাটার মাদ্রাসা শিক্ষক মো. আলমগীর হোসেনের।

শিক্ষকের অভিযোগ, সুপারি চোর দুলাল প্যাদার ঘুষিতে তার দাঁত পড়ে গেছে।

আলমগীর হোসেন কাঁঠালতলী ইউনিয়নের কালীবাড়ি গ্রামের আবুল হোসেন মাস্টারের ছেলে ও তালুকের চরদুয়ানী নেছারিয়া দাখিল মাদ্রাসার সহকারী শিক্ষক। 

অভিযুক্ত দুলাল একই গ্রামের মৃত হাচন প্যাদার ছেলে।

ভুক্ত শিক্ষকের স্ত্রী পারভীন বেগম বলেন, গত রোববার স্থানীয় দুলাল প্যাদা আমার বাড়ির সুপারি চুরি করায় তার বিরুদ্ধে স্বামী আলমগীর হোসেন ইউপি সদস্য শাহ জালালের কাছে অভিযোগ করে বাড়ি ফিরছিলেন।

এ সময় দুলাল আমার স্বামীকে অতর্কিত হামলা চালায়। এ সময় ঘুষি মেরে তার সামনের ৩টি দাঁত ফেলে দেয় এবং শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত করে পালিয়ে যায়। স্থানীয়রা আলমগীরকে উদ্ধার করে পাথরঘাটা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

চোর দুলালও স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হতে গেলে চিকিৎসক তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ছেড়ে দেন। পরে আবার তার মাথায় নিজেই আঘাত করে হাসপাতালে ভর্তি হন।

পাথরঘাটা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্তব্যরত চিকিৎসক কানিজ ফাতিমা রিমু জানান, দুলাল প্যাদাকে ভর্তি করে চিকিৎসা দেয়ার মতো কোনো ইনজুরি হয়নি। পরবর্তীকালে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে অনুরোধ করায় তাকে ভর্তি নেয়া হয়, তবে তার তেমন কোনো গুরুতর সমস্যা নেই।

এ বিষয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্য শাহ জালাল মারধরের ঘটনার কথা স্বীকার করে জানান, দুলাল প্যাদা আলমগীরকে ঘুষি মেরে সামনের ৩টি দাঁত ফেলে দিয়েছে। তাকে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

আপনার মন্তব্য