ফাহাদের ছোটভাইকে পেটালো পুলিশ

989
ফাহাদের ছোটভাইকে পেটালে পুলিশ

বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদের ছোটভাই আবরার ফায়াজকে মারধর করেছে পুলিশ। বুধবার বিকেলে কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলায় রায়ডাঙ্গা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

Posted by BarendraExpress.com.bd on Wednesday, October 9, 2019

দেশজুড়ে ডেস্ক: বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদের ছোটভাই আবরার ফায়াজকে মারধর করেছে পুলিশ।

বুধবার বিকেলে কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলায় রায়ডাঙ্গা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

এর আগে পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলায় রায়ডাঙ্গা গ্রামে যান বুয়েটের উপাচার্য অধ্যাপক সাইফুল ইসলাম।

সেখানে ভিসিকে বাধা দেন এলাকাবাসী। এসময় এলাকাবাসীকে ঠেকাতে আসে পুলিশ।  এনিয়ে এলাকাবাসীল সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ বাঁধে। 

এ সময় আবরারের ছোট ভাই ফায়াজ, তার ফুপাতো ভাইয়ের স্ত্রী ও আরও একজন নারীকে মারধর করে পুলিশ। 

স্থানীয় সূত্র জানায়, বুয়েট ভিসি আবরারের কবর জিয়ারত করতে পেরেছেন। তবে আবরারের বাড়িতে ঢুকতে পারেননি তিনি।

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদের পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলায় রায়ডাঙ্গা গ্রামে যান বুয়েটের উপাচার্য অধ্যাপক সাইফুল ইসলাম।

কিন্তু গ্রামবাসীর তোপের মুখে তিনি সেখান থেকে পালিয়ে এসেছেন বলে জানা গেছে।

বুধবার বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে কুমারখালী উপজেলায় রায়ডাঙ্গা গ্রামে যান।

তবে এ বিষয়ে তাৎক্ষণিকভাবে কারও কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

ফায়াজ বলেন, আমি আবরারের ছোট ভাই। আজ আমাদের এখানে ভিসি সাহেব এসেছিলেন। এখানে এসে তার আমার মা’র সাথে দেখা করা উচিত ছিল। 

তিনি এখানে দেখা করতে তো আসলেনই না বরং তিনি যখন ফিরে যাচ্ছিলেন এবং আমি তার সাথে কথা বলতে যাই। 

তখন এখানকার দায়িত্বে থাকা অ্যাডিশনাল এসপি (অতিরিক্ত পুলিশ সুপার) মোস্তাফিজুর রহমান আমার বুকে কনুই দিয়ে আঘাত করেন এবং কালকেও যখন আমার ভাইয়ের জানাজা হয় তখন তিনি বলেছিলেন দুই মিনিটের মধ্যে জানাজা শেষ করতে হবে। 

কিভাবে তিনি এটা বলেন? আজ এখানে আমার ভাবি ছিল, তাঁকে বেধড়কভাবে পুলিশ দিয়ে মারা হয়েছে। তার কাপড়-চোপড় টেনে তার শ্লীলতাহানি পর্যন্ত করা হয়েছে। এটা বাংলাদেশের কোন ধরনের পুলিশ?

কুষ্টিয়ার পুলিশ সুপার (এসপি) এস এম তানভীর আরাফাত বিষয়টিকে সম্পূর্ণ অস্বীকার করে বলেন, আবরারের  ভাই ভিসি সাহেবকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করতে হাত তুলেছিলেন। মোস্তাফিজ (অ্যাডিশনাল এসপি, ডিএসবি) সেটা ঠেকিয়েছেন। এটাই তার অপরাধ।

দুই মিনিটে জানাজা শেষ করতে হবে এমন অভিযোগ প্রসঙ্গে এসপি বলেন,  দুই মিনিটে জানাজা করার প্রশ্নই উঠে না। যেটা সম্ভব না সে কথা কিভাবে বলবে।

এর আগে বুধবার বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে কুষ্টিয়া সার্কিট হাউসে পৌঁছান বুয়েটের উপাচার্য অধ্যাপক সাইফুল ইসলাম। সেখান থেকে কুমারখালী উপজেলায় রায়ডাঙ্গা গ্রামে যান তিনি।

রায়ডাঙ্গা গ্রামে গিয়ে ফাহাদের কবর জিয়ারত ও তার পরিবারের সঙ্গে দেখা করার কথা ছিল ভিসির। 

এ খবরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বিপুল পরিমাণ সদস্য মোতায়েন করা হয়। 

ফাহাদের বাড়ির পাশে ও কবরের আশপাশের এলাকায় অসংখ্য র‌্যাব ও পুলিশ অবস্থান নেয়।

গত রোববার রাতে বুয়েটের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র আবরার ফাহাদকে ডেকে নিয়ে যায় ছাত্রলীগের একদল নেতাকর্মী। এরপর তাকে শেরেবাংলা হলের ২০১১ নম্বর কক্ষে পিটিয়ে হত্যা করা হয়।

আরও পড়ুন

‘কিসের ছাত্রলীগ? কাউকে ছাড় দেয়া হবে না’

বুয়েটের তিন হলে ৭ টর্চার সেল, নিয়মিতই চলে নির্যাতন!

ফাহাদ হত্যা মামলার আসামির পক্ষ নেয়া আইনজীবীকে বহিষ্কার

ফাহাদ হত্যায় শেরে বাংলা হল প্রভোস্টের পদত্যাগ

ফাহাদের মায়ের সঙ্গে দেখা না করেই কুষ্টিয়া ছাড়লেন বুয়েটের ভিসি

মুখ চেপে ধরায় কাঁদতে পারেননি ফাহাদ!

আপনার মন্তব্য