লটারিতে ধান কেনা নিয়ে দ্বন্দ্বের জেরে ছাত্রলীগ নেতার বাড়িতে হামলা

22
ইউপি চেয়ারম্যানের উপর আওয়ামী লীগের হামলা

দেশজুড়ে ডেস্ক: লটারিতে ধান কেনা নিয়ে বিরোধের জেরে ঝিনাইদহ সাবেক জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতির বাড়িতে ভাংচুর করেছে প্রতিপক্ষরা।

সোমবার বিকালে ঝিনাইদহের সদর উপজেলার সুরাট ইউনিয়নের চুটলিয়া গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। এ সময় নগদ টাকা ও স্বর্ণালংকার লুট করা হয়েছে বলে অভিযোগ করা হয়েছে। 

এঘটনায় ভুক্তভোগী সাবেক ছাত্রলীগ নেতা হাফিজুর রহমান বাদী হয়ে চেয়ারম্যান কবির হোসেন কেবিকে আসামি করে ৮ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত ২০/২৫ জনের নামে মামলা দায়ের করেছেন। 

মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, সোমবার বিকালে ইউপি চেয়ারম্যান কবির হোসেন কেবির ভাই শাবু ও কাষ্টসাগরা গ্রামের মৃত শরাফত খাঁর ছেলে জিয়াউর রহমান জিয়া চুটলিয়া গ্রামের কৃষকদের কাছ থেকে মাত্র ১০০০ থেকে ২০০০ টাকা করে দিয়ে ধান ক্রয়ের কৃষক কার্ডের চেক ছিনিয়ে নিতে থাকে।

পরিশোধিত টাকার চেক ছিনিয়ে নেওয়ার সময় সাবেক ছাত্রলীগ নেতা চঞ্চল বাধা দেয়। এসময় জিয়ার সাথে ছাত্রলীগ নেতা চঞ্চলের বাক-বিতন্ডা হয়। এক পর্যায়ে চঞ্চল জিয়াকে একটি থাপ্পড় মারে।

পরে জিয়া কেবি চেয়ারম্যানের কাছে গিয়ে অভিযোগ দিলে ২০/২৫ জনের ক্যাডার বাহিনী দেশীয় অস্ত্রেশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে বেশ কয়েকটি মোটরসাইকেলযোগে এসে চঞ্চলের বাড়িতে হামলা চালায়। 

এসময় চঞ্চলের ঘরে থাকা বাক্স হতে নগদ ৫০ হাজার টাকা, ৩ ভরি সোনার অলংকার লুট করে এবং ভাঙচুর চালায়।

ওই সময় চঞ্চলের বৃদ্ধ পিতা অবসর প্রাপ্ত শিক্ষক তোফাজ্জেল হোসেন বাঁধা দিলে তাকেও লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে আহত করা হয়।

অভিযোগ অস্বীকার করে এ ব্যাপারে ইউপি চেয়ারম্যান কবির হোসেন কেবি বলেন, ঘটনা আমি জানি না, কিন্তু আমার বিরুদ্ধে থানায় এজাহার দাখিল করা হয়েছে। বিষয়টি দুঃখজনক বলে মনে করি। 

ঝিনাইদহ সদর থানার ওসি মঈন উদ্দিন জানান, এজাহার দাখিল করা হয়েছে। তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

আপনার মন্তব্য