মধু উৎপাদন ও প্রসেসিং নিয়ে গবেষণা প্রয়োজন

22
প্রতি কেজিতে ডিএপি সারে দাম কমল ৯ টাকা

জাতীয় ডেস্ক: কৃষিমন্ত্রী ড.আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, মধু উৎপাদন, বিপণন, প্রসেসিং নিয়ে গবেষণা প্রয়োজন। তিনি বলেন, ‘মৌ চাষ সম্প্রসারণ পুষ্টির চাহিদা পূরণের পাশাপাশি পরাগায়ণের মাধ্যমে ফল ও ফসলের উৎপাদন বৃদ্ধিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। 

তাই ফসলের মাঠে মৌ চাষ কৃষকের জন্য বাড়তি আয়ের সংস্থান করে থাকে। মৌ সম্পদের টেকসই উৎপাদন নিশ্চিত করার জন্য প্রযুক্তির ব্যবহার, প্রসেসিং ও বাজার জাত অপরিহার্য।’ 

আজ রোববার রাজধানীর আ কা মু গিয়াস উদ্দিন মিলকি অডিটরিয়াম চত্বরে জাতীয় মৌ মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।


আব্দুর রাজ্জাক বলেন, মূল্যবান মৌ সম্পদ এবং মধু উৎপাদন ও বিপণনের মাধ্যমে স্থানীয় চাহিদা পূরণ করে রপ্তানির মাধ্যমে বৈদেশিক মুদ্রা আর্জন সম্ভব। মৌচাষের বিষয়টি স্বল্পশ্রম ও স্বল্প পুঁজির বিনিয়োগের তুলনায় অধিক মুনাফা লাভের সম্ভাবনাময় পেশা ও ব্যবসা হিসেবে জনপ্রিয়তা এবং গ্রহণযোগ্যতা অর্জন করেছে।


তিনি বলেন, আমাদের সম্ভাবনার সর্বোচ্চ অংশটুকু নিশ্চিত করতে সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি পর্যায়েও মৌ চাষ ও বিপণনে আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহারের প্রয়োজনীয় রয়েছে। এখাতে প্রতক্ষ্য ও পরোক্ষভাবে মোট ৩০ শতাংশ নারী জড়িত। 

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের মহাপরিচালক মীর নুরুল আলমের সভাপতিত্বে কৃষি মন্ত্রণালয়েল সচিব মো: নাসিরুজ্জামান বক্তব্য রাখেন।


অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের কীটতত্ব বিভাগের অধ্যাপক আহসানুল হক স্বপন। 

তিন দিনব্যাপী এবারের মৌ মেলার প্রতিপাদ্য-‘ফলন, আয় ও পুষ্টি বাড়াতে মৌ চাষ করি’। এবারের মলোয় মোট ৬০টি স্টল অংশগ্রহণ করেছে। মেলা আগামী ১২ মার্চ পর্যন্ত চলবে।

আপনার মন্তব্য