পুঠিয়ায় সন্তানের সামনে মায়ের মুখে আগুন দিলো বোরখা পড়া দুর্বৃত্ত

86
পুঠিয়ায় সন্তানের সামনে মায়ের মুখে আগুন দিলো বোরখা পড়া দুর্বৃত্ত


স্টাফ রিপোর্টার, পুঠিয়া: রাজশাহীর পুঠিয়ায় একমাত্র সন্তানেকে স্কুলে নিয়ে যাওয়ার পথে বোরখা পড়া দুর্বৃত্তের দেয়া আগুনে মুখ মন্ডল ঝলসে গেছে জেরিন আখতার (২৭) নামের এক মায়ের। স্থানীয় লোকজন তাকে মুমুর্ষ অবস্থায় উদ্ধার করে প্রথমে রামেক হাসপাতালে ভর্তি করেন।

পরে তার অবস্থার অবনতি দেখা দিলে রাতেই ঢামেক হাসপাতালের বার্ণ ইউনিটে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনায় ওই এলাকা জুড়ে সাধারণ মানুষের মাঝে চরম আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে।

জেরিন আখতার বানেশ্বর বাজার এলাকায় অবস্থিত ইউনাইটেড ব্যাংকের কর্মচারী মিজানুর রাহমানের স্ত্রী ও রাজশাহী কলেজের মাষ্টাসের শেষ বর্ষের ছাত্রী।

গত মঙ্গলবার (২৯ জানুয়ারী) সকাল সাড়ে ৭টার দিকে বানেশ্বর কলেজ মাঠের পাশে এ ঘটনা ঘটে।

জেরিন আখতারের স্বামী মিজানুর রহমান বলেন, সে প্রতিদিনের ন্যায় সকালে বাচ্চাকে নিয়ে স্কুলে যাচ্ছিল। কলেজের পাশে যাওয়ার পর আগে থেকে উৎপেতে থাকা বোরখা পড়া একজন আমার স্ত্রীর গতিরোধ করে। এক পর্যায়ে আমার স্ত্রীর শরীরে ওই বোরখা পড়া দুর্বৃত্ত বোতল থেকে পেট্রোল ছিটিয়ে আগুন ধরিয়ে দেয়। সে সময় তার চিৎকারে আশে পাশের লোকজন ছুটে আসলে ওই দুর্বৃত্ত দৌড়ে পালিয়ে যায়।

মূমূর্ষ অবস্থায় জেরিন আখতারকে প্রথমে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে তার অবস্থার অবনতি দেখা দিলে গত রাতেই ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ণ ইউনিটে নেয়া হয়েছে। এ বিষয়ে থানায় কোনো অভিযোগ দেয়া হয়নি। তবে ঢাকা থেকে ফিরে একটি অভিযোগ দায়ের করবেন বলে জানান তিনি।

থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাকিল উদ্দীন আহম্মেদ বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, মেয়েটির মুখমন্ডলে অগ্নিকান্ডের বিষয়টি রহস্যজনক ঘটনা। পুলিশ ঘটনার পর থেকে রহস্য উৎঘাটন ও যে ঘটনাটি ঘটিয়েছে তাকে আটকের জন্য ব্যাপক তৎপর রয়েছে।

তবে এখনো আজ বুধবার দুপুর পর্যন্ত মেয়েটির পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় কোনো অভিযোগ দেয়নি।

আপনার মন্তব্য