বোর্ড সেরা রাজশাহী, শ্রেষ্ঠত্ব হারালো বগুড়া

714
বোর্ড সেরা রাজশাহী, শ্রেষ্ঠত্ব হারালো বগুড়া

স্টাফ রিপোর্টার: এবারের এইচএসসি পরীক্ষায় রাজশাহী বোর্ডে সব চেয়ে ভালো ফলাফল করেছে রাজশাহী জেলা। টানা বোর্ডে শীর্ষ থাকা বগুড়া জেলাকে পেছনে ফেলে শীর্ষে উঠে এসেছে রাজশাহী। বুধবার দুপুরে রাজশাহী শিক্ষাবোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অধ্যাপক ড. আনারুল হক প্রামানিক আনুষ্ঠানিকভাবে ফলাফল ঘোষণা করেন।

বোর্ডের সার্বিক ফলাফল পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, রাজশাহী বিভাগের আট জেলার মধ্যে পাশের হারে শীর্ষে উঠে এসেছে রাজশাহী জেলা। জেলার মোট পরীক্ষার্থী ছিলো ২৯ হাজার ৬৪২ জন। এর মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ২৪ হাজার ৫২৬ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ২ হাজার ১২৪ জন। পাশের হার ৮২ দশমিক ৭৪ শতাংশ।

এর মধ্যে ৭৯ দশমিক ২৭ শতাংশ ছেলে এবং ৮৭ দশমিক ১৯ শতাংশ মেয়ে উত্তীর্ণ হয়েছে এ জেলায়। গত বছর রাজশাহীতে পরীক্ষার্থী ছিলো ২৪ হাজার ২৮৪ জন। ৭১ দশমিক ২০ শতাংশ হারে উত্তীর্ণ হয় ১৭ হাজার ২৮৯ জন। গত বছর জিপিএ-৫ পেয়েছিলো এক হাজার ৬৮৮ জন।

এবার বোর্ডে দ্বিতীয় অবস্থানে বগুড়া জেলা। এখানকার পাশের হার ৮১ দশমিক ১৮ শতাংশ। এ জেলার মোট পরীক্ষার্থী ছিলো ২৬ হাজার ১৭৮ জন। এর মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ২১ হাজার ২৫০ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ২ হাজার ৪৩৭ জন। এখানকার ৭৮ দশমিক ০৮ শতাংশ ছেলে এবং ৮৪ দশমিক ৮৬ শতাংশ মেয়ে উত্তীর্ণ হয়েছে। গত বছর ২৬ হাজার ৯৫৮ জন অংশ নিয়ে পাশ করেছিলো ১৮ হাজার ৮২১ জন। পাশের হার ছিলো ৬৯ দশমিক ৮২ শতাংশ। সেইবার জিপিএ-৫ পেয়েছে এক হাজার ১৫১ জন।

গতবারেরমত এবারো বোর্ডে তৃতীয় অবস্থানে নাটোর জেলা। এই জেলায় মোট পরীক্ষার্থী ছিলো ১২ হাজার ৭৮৮ জন। ৭৬ দশমিক ৬৬ শতাংশ হারে পাশ করেছে ৯ হাজার ৮০৩জন। নাটোরে ৭২ দশমিক ৯০ শতাংশ ছেলে এবং ৮১ দশমিক ০১ শতাংশ মেয়ে উত্তীর্ণ হয়েছে। এবার জিপিএ-৫ পেয়েছে ২৮৪ জন। গত বছর এই সংখ্যা ছিলো ১৬৯ জন। সেইবার ১২ হাজার ৪৭৬ জন পরীক্ষার্থী অংশ নিয়ে উত্তীর্ণ হয় ৮ হাজার ৫৩১ জন। পাশের হার ছিলো ৬৮ দশমিক ৩৮ শতাংশ।

গতবছর বোর্ডে সপ্তম অবস্থানে ছিলো সিরাজগঞ্জ জেলা। এবার উঠে এসেছে চারে। এই জেলায় মোট পরীক্ষার্থী ছিলো ২৫ হাজার ৩৩০ জন। ৭৪ দশমিক ৬৩ হারে উত্তীর্ণ হয়েছে ১৮ হাজার ৯০৫ জন। এর মধ্যে ৭২ দশমিক ২৯ শতাংশ ছেলে এবং ৭৮ দশমিক ৬৪ শতাংশ মেয়ে। এবার জিপিএ-৫ পেয়েছে ৬৪৬ জন। গত বছর এই সংখ্যা ছিলো ৩৫৮ জন। সেইবার ২৪ হাজার ৬৬৭ জন পরীক্ষার্থী অংশ নেয়। এর মধ্যে ৬২ দশমিক ৭৭ শতাংশ হারে উত্তীর্ণ হয় ১৫ হাজার ৪৮৩ জন।

বোর্ড সেরা রাজশাহী, শ্রেষ্ঠত্ব হারালো বগুড়া

এক ধাপ নিচে নেমে এবার বোর্ডে পঞ্চম অবস্থানে পাবনা জেলা। এই জেলায় ২০ হাজার ৬৪৩ জন পরীক্ষার্থী অংশ নিয়ে উত্তীর্ণ হয়েছে ১৫ হাজার ৩২১ জন। পাশের হার ৭৪ দশমিক ২২ শতাংশ। এর মধ্যে ৬৯ দশমিক ১৩ শতাংশ ছেলে এবং ৮৯ দশমিক ৫৩ শতাংশ মেয়ে। এবছর জিপিএ-৫ পেয়েছে ৬৪২ জন। গত বছর এই সংখ্যা ছিলো ৪২০ জন। সেইবার ১৮ হাজার ৬৫৬ জন পরীক্ষার্থী ছিলো এই জেলায়। এর মধ্যে উত্তীর্ণ হয় ১২ হাজার ৪২৪ জন।

ফলাফলে একধাপ নিচে নেমেছে জয়পুরহাট জেলাও। পঞ্চম থেকে এবার বোর্ডে এই জেলার অবস্থান ষষ্ঠ। এই জেলার পাশের হার ৭২ দশমিক ৬৪ শতাংশ। গতবার এই হার ছিলো ৬৪ দশমিক ৬৮ শতাংশ। এ বছর ৭ হাজার ৪৩ জন অংশ নিয়ে উত্তীর্ণ হয়েছে ৫ হাজার ১১৬ জন। এর মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ২০৯ জন। এবার ৪৬ দশমিক ৮৪ শতাংশ ছেলে এবং ৮০ দশমিক ৯৮ শতাংশ মেয়ে উত্তীর্ণ হয়েছে। গত বছর জয়পুরহাটে মোট পরীক্ষার্থী ছিলো ৬ হাজার ৩১০ জন। এর মধ্যে উত্তীর্ণ হয় ৪ হাজার ৮১ জন। সেইবার জিপিএ-৫ পেয়েছে ১১১ জন।

গতবারের ষষ্ঠ অবস্থান হারিয়ে এবার সপ্তমে নওগাঁ জেলা। এখানে মোট পরীক্ষার্থী ছিলো ১৪ হাজার ৯১১ জন। ৬৯ দশমিক ০৭ শতাংশ হারে উত্তীর্ণ হয়েছে ১০ হাজার ২৯৯ জন। এর মধ্যে ৬৩ দশমিক ৫৬ শতাংশ ছেলে এবং ৭৬ দশমিক ২৭ শতাংশ মেয়ে। এবার জিপিএ-৫ পেয়েছে ১৫২ জন। গত বছর এই সংখ্যা ছিলো ১৪৩ জন। সেইবার ১৩ হাজার ৭৯৬ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে উত্তীর্ণ হয় ৮ হাজার ৬৯৬ জন। পাশের হার ছিলো ৬৩ দশমিক ০৪ শতাংশ।

ফলাফলে এবারো বোর্ডের তলানিতে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা। এ জেলায় পাশের হার ৬৮ দশমিক ৬৩ শতাংশ। এখানে মোট পরীক্ষার্থী ছিলো ১২ হাজার ১৩৭ জন। এর মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ৮ হাজার ৩৩০ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ২৩৫ জন। ৬৪ দশমিক ৪০ শতাংশ ছেলে এবং ৭৩ দশমিক ৭৫ শতাংশ মেয়ে পাশ করেছে এই জেলায়। গতবছর চাঁপাইনবাবগঞ্জে মোট পরীক্ষার্থী ছিলো ১২ হাজার ১৮৫ জন। ৬০ দশমিক ৩১ শতাংশ হারে ৭ হাজার ৩৪৯ জন। সেইবার জিপিএ-৫ পেয়েছে ৯৮ জন।

এবার বোর্ডে মোট পরীক্ষার্থী ছিলো এক লাখ ৫১ হাজার ১৩৪জন। এর মধ্যে পাশ করেছে এক লাখ ১৩ হাজার ৫৫০জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৬ হাজার ৭২৯ জন। এবছর ৮১ দশমিক ২১ শতাংশ মেয়ে এবং ৭২ দশমিক ৩২ শতাংশ ছেলে পাশ করেছে। ফলাফল সন্তোষজনক বলে জানিয়েছে শিক্ষাবোর্ড।

আপনার মন্তব্য