রাজশাহীতে ফিলিং স্টেশন খুলতেই যানবাহনের ভিড়

23
রাজশাহীতে ফিলিং স্টেশন খুলতেই যানবাহনের ভিড়

সোমবার বেলা ২টার পর থেকে খুলেছে রাজশাহীর ফিলিং স্টেশনগুলো। এরপর থেকেই ভিড় জমাচ্ছেন সবধরণের যানবাহন মালিক ও চালকরা। ১৫ দফা দাবিতে রোববার ভোর ৬টা থেকে শুরু হওয়া এই ধর্মঘট স্থগিত করে পেট্রোল পাম্প ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন ও ট্যাংকলরি মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদ।

Posted by বরেন্দ্র এক্সপ্রেস on Monday, December 2, 2019

স্টাফ রিপোর্টার: সোমবার বেলা ২টার পর থেকে খুলেছে রাজশাহীর ফিলিং স্টেশনগুলো। এরপর থেকেই ভিড় জমাচ্ছেন সবধরণের যানবাহন মালিক ও চালকরা।

১৫ দফা দাবিতে রোববার ভোর ৬টা থেকে শুরু হওয়া এই ধর্মঘট স্থগিত করে পেট্রোল পাম্প ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন ও ট্যাংকলরি মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদ।

ধর্মঘটের কারণে এই অঞ্চলের কোথাও মেলেনি জ্বালানী। ফলে বিপাকে পড়েছিলেন যানবাহন মালিকরা। অনেকেই নিরুপায় হয়ে বন্ধ রেখেছিলেন যান। 

স্থগিতের ঘোষণা আসতেই ফিলিং স্টেশনগুলোতে হুমড়ি খেয়ে পড়ে যানবাহনগুলো। সবচেয়ে বেশি ভিড় দেখা গেছে মোটরসাইকেলের।

পেট্রোল পাম্প ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের রাজশাহী জেলার সভাপতি মনিমুল হক জানান, ঢাকায় বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশনের (বিপিসি) সঙ্গে তাদের নেতাদের ফলপ্রসু বৈঠক হয়েছে।

সেখানে কমিশন বৃদ্ধির দাবি মেনে নেয়া হয়। অন্য ১৪টি দাবির বিষয়ে দুটি মন্ত্রণালয়ের যৌথসভা হতে হবে। 

তাই সরকারের তরফ থেকে কয়েকদিন সময় নেয়া হয়েছে। এ জন্য ১৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত তারা ধর্মঘট স্থগিত করেছেন।

জ্বালানি তেল বিক্রির কমিশন এবং ট্যাঙ্কলরি ভাড়া বাড়ানোসহ ১৫ দফা দাবি বাস্তবায়নে ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত সময় বেধে দিয়েছিলো পেট্রোল পাম্প ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন ও ট্যাংকলরি মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদ।

গত ২৬ নভেম্বর বগুড়া প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে এই আহবান জানান সংগঠনের কেন্দ্রীয় মহাসচিব ও রাজশাহী বিভাগীয় সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা মিজানুর রহমান রতন।

তিনি বলেন, তাদের দাবিগুলো যৌক্তিক। দাবি বাস্তবায়নে তারা সরকারকে ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত সময় বেধে দিয়েছিলেন। কিন্তু ওই সময়ের মধ্যে দাবি বাস্তবায়ন হয়নি। ফলে তারা আন্দোলনে নেমেছিলেন।

আপনার মন্তব্য